হাওড়া: অমর একুশে ফেব্রুয়ারি। বাংলা ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে একটি গৌরবময় দিন। ভাষা শহিদ সালাম-বরকত-রফিকের রক্তে ভেজা এই দিনটি সারাবিশ্বের কাছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পরিচিত। কারণ, আজ থেকে প্রায় ৬৮ বছর আগে, ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি এই দিনটিতে মায়ের ভাষা, বাংলা ভাষাকে অগ্রাধিকার দেওয়ার জন্য পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করে শহীদ হয়েছিলেন বাঙালি মায়ের পাঁচ সন্তান। সেই থেকে বিশেষ এই দিনটি ভারত-বাংলাদেশ সহ গোটা বিশ্বের দরবারে সমমর্যাদায় পালিত হয়ে আসছে।

বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের মর্মন্তুদ ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত একটি বিশেষ দিন হিসেবেও এটি চিহ্নিত হয়ে আছে। শুক্রবার ২১ফেব্রুয়ারি। এদিন সকালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে, এক বিশাল পদযাত্রার আয়োজন করে উত্তর হাওড়ার শিল্পী সংস্থা। সালকিয়ার বাঁধাঘাটে ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তিতে মাল্যদান করে পদযাত্রা শুরু হয়। এই পদযাত্রা শেষ হ সালকিয়ার বারোয়ারিতলা পর্যন্ত এসে। এদিনের পদযাত্রায় অংশ নেন উত্তর হাওড়া শিল্পী সংস্থার শিল্পী,সদস্য এবং সমাজের বিশিষ্টজনেরা।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে এদিনের পদযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন, রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী অরূপ রায়। উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া ও যুবকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্লা, ফুটবলার সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দুই প্রাক্তন মেয়র পারিষদ শ্যামল মিত্র ও গৌতম চৌধুরী। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, অরিজিৎ বটব্যাল, ডঃ বিরাজলক্ষ্মী ঘোষ মজুমদার, মালিপাঁচঘড়া থানার ওসি অমিত কুমার মিত্র সহ আরও অনেকে।

এদিনের অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষণ ছিল, মিজো, অলচিকি, মুন্ডা প্রভৃতি ভূমিজ ভাষার অনুষ্ঠান। পরিকল্পনায় ছিলেন সমিত কুমার ঘোষ ও সংযুক্তা দে। উত্তর হাওড়া শিল্পী সংস্থার সম্পাদিকা সংযুক্তা দে বলেন, ”বাংলা ভালো ভাষা, বাংলা ভালোবাসা। যে ভাষা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে আমাদের ভাইয়ের রক্তে, সেই ভাষাকে কোনও অবস্থাতেই লঘু হতে দেব না। আজকের দিনে এই শপথ নিলাম।”