বেঙ্গালুরু: কাফে কফি ডে-র প্রতিষ্ঠাতা ভিজি সিদ্ধার্থের শেষকৃত্য সম্পাদনের সময় কান্নায় ভেঙে পড়লেন পুত্র অমর্ত্য৷ বুধবার সিদ্ধার্থের শেষ যাত্রায় সামিল হয়েছিলেন অগনিত মানুষ৷ সেখানে এদিন তাঁর পুত্র শেষকৃত্য সম্পাদনের সময় বার বার কান্নায় ভেঙে পড়ছিলেন৷ সেই সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শোকাহত কর্ণাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা সিদ্ধার্থের শ্বশুর এসএম কৃষ্ণা৷

তাছাড়া, এদিন শেষকৃত্যের সময় হাজির ছিলেন কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পা, প্রবীন কংগ্রেস নেতা ডিকে শিবকুমার সহ বেশ কিছু রাজনৈতিক ও শিল্পমহলের ব্যক্তিত্ব৷

দীর্ঘ ৩৬ ঘন্টা তল্লাশির পর বুধবার সকালে সিসিডি-র প্রতিষ্ঠাতা ভি জি সিদ্ধার্থের নিথর দেহ নেত্রাবতী নদী থেকে উদ্ধার হয়৷ তারপর সেই দেহ ওয়েনলক হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়৷

সোমবার রাত থেকেই খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না ক্যাফে কফি ডে-র প্রতিষ্ঠাতাকে৷ সিদ্ধার্থকে শেষবার মেঙ্গালুরুতে নেত্রাবতী নদীর কাছে দেখা যায় বলে জানা গিয়েছিল৷ তারপরে তল্লাশিতে নেমে পড়ে পুলিশ এবং কোস্টগার্ড৷

জানা যায়, সিদ্ধার্থ একটি চিঠি রেখে যান৷ যে চিঠিতে ফুটে উঠেছে হতাশা আর লড়াই আর ব্যর্থতার কথা৷ এতে লেখা, যারা আমার ওপর ভরসা করেছিলেন তাদের ভরসা রাখতে না পারার জন্য আমি দুঃখিত৷ আমি ব্যর্থ৷ দীর্ঘদিন ধরে আমি লড়াই করছি, কিন্তু আর চাপ নিতে পারছি না৷ মূলত ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে তার ওপর একটা চাপ দিন দিন বেড়েই চলছিল সেই বিষয়টিই উল্লেখ করেন তিনি এই চিঠিতে৷ ওই চিঠিতে ঋণের বোঝা এবং আয়কর সংক্রান্ত ঝামেলার ইঙ্গিত ছিল৷

এদিকে, আপাতত কফি ডে এন্টারপ্রাইজের অন্তর্বর্তী চেয়ারম্যান হয়েছেন প্রাক্তন আইএএস অফিসার এবং বোর্ড সদস্য এসভি রঙ্গনাথ৷পাশাপাশি বোর্ড নীতিন বাগমেনকে সংস্থার অন্তর্বর্তী চিফ অপারেটিং অফিসার করা হয়েছে ৷এক প্রেস বিবৃতিতে জানান হয়েছে,বোর্ড প্রয়াত ভিজি সিদ্ধার্থের স্ত্রী মালবিকা (যিনি নিজেও একজন বোর্ড সদস্য) বার্তা পাঠিয়েছে তাঁর প্রতি আস্থা ও সমর্থন জানিয়ে৷