নয়াদিল্লি: রাজধানীতে বেড়ে চলা অশান্তির জেরে পরীক্ষা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত সিবিএসই বোর্ডের। রবিবার থেকে দিল্লিতে চলা দফায় দফায় সংঘর্ষের জেরে মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত ১৩ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। সংঘর্ষে আহতের সংখ্যা দুশো ছাড়িয়েছে। হিংসার আগুন জ্বলছে উত্তর-পূর্ব দিল্লির বিস্তীর্ণ প্রান্তে।

একদিকে সিএএ বিরোধী আন্দোলনকারী ও অন্যদিকে সিএএ-র পক্ষে সওয়ালকারীদের মধ্যে সংঘর্ষের জেরে অশান্ত রাজধানী দিল্লি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে উত্তর-পূর্ব দিল্লির মৌজপুর, জাফরাবাদ, চাঁদবাগ, কারাওয়াল নগরে কার্ফু জারি প্রশাসনের। দিল্লিতে গত তিন দিনের হিংসায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৩ জন।

আহত দুশোরও বেশি মানুষ দিল্লির একাধিক হাসপাতালে ভরতি রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে অনেকেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই পরিস্থিতিতে উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে সিবিএসই বোর্ডের পরীক্ষা স্থগিত রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দশম শ্রেণির দুটি ও দ্বাদশ শ্রেণির তিনটি পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ভারতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পা রাখার পর থেকেই দিল্লিতে সিএএ ইস্যুতে বিক্ষোভ চরম আকার নেয়। রবিবার থেকে বিক্ষোভ-আন্দোলন শুরু হয় দিল্লির জাফরাবাদে। তা নিয়ে চলে গন্ডগোলও। পরে সোম ও মঙ্গলবারও অশান্ত ছিল উত্তর-পূর্ব দিল্লির বিস্তীর্ণ এলাকা। একের পর এক সংঘর্ষের জেরে মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে বেড়েছে। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে আহতের সংখ্যাও।

সব পক্ষকে শান্তি বজায় রাখার আবেদন জানিয়েছে পুলিশ। কার্ফু জারি করা এলাকাগুলিতে ঘর ছেড়ে রাস্তায় বের হতে নিষএধ করা হয়েছে বাসিন্দাদের। আইন ভাঙলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারিও দেওয়া হচ্ছে পুলিশএর তরফে। এদিকে, দিল্লির সাম্প্রতিক পরিস্থিতি বিচার করতে মঙ্গলবার রাতেই তৎপরতা নিয়েছেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। দিল্লির পুলিশকর্তাদের সঙ্গে পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকও করেছেন অজিত দোভাল।