ফাইল ছবি

কলকাতা:  খোঁজ নেই কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমারের। বেশ কয়েকদিন কেটে গেলেও এখনও খোঁজ নেই তাঁর। কার্যত প্রাক্তন নগরপালকে হন্যে খুঁজছেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা। এই অবস্থায় ইতিমধ্যে স্পেশাল টিম তৈরি করেছে সিবিআই। মূলত রাজীব কুমারকে খুঁজে বার করতেই এই স্পেশাল টিম তৈরি করা হয়েছে। দিল্লি থেকে ইতিমধ্যে এই টিম কলকাতায় এসে পৌঁছে গিয়েছে। আর কলকাতায় পৌঁছেই প্রাক্তন নগরপালের খোঁজে তল্লাশিতে বেরিয়ে পড়ল এই স্পেশাল টিম।

জানা গিয়েছে, তল্লাশিতে বের হওয়ার আগে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে প্রথমে বৈঠক সারেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। এরপরেই তিনটি গাড়ির কনভয় রাজীবের খোঁজে বেরিয়ে পড়ে শহরে। কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় এই টিম হানা দিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। জানা গিয়েছে, রাজীব কুমারের বাসভবনে যেতে পারেন তদন্তকারীরা। কারণ সিবিআই গোপন সূত্রে খবর পাচ্ছে যে সেখানে কার্যত গা ঢাকা দিয়ে রয়েছেন এডিজি সিআইডি।

অন্যদিকে সিবিআই অফিসাররা আসতে পারেন রাজীবের বাসভবনে। এই খবর পাওয়া মাত্র রাজীব কুমারের বাসভবনে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। প্রচুর পরিমাণে সাদা পোশাকের পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে সেখানে। মনে করা হচ্ছে, সিবিআই আধিকারিকরা যাতে কোনওভাবেই বাড়ির ভিতরে না ঢুকতে পারেন সেজন্যেই এভাবে কার্যত ‘মানব-ঢাল’ পুলিশ আধিকারিকরা তৈরি করে রেখেছেন বলে জানা গিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.