সুভাষ বৈদ্য, কলকাতা: সারদা-মামলায় চাঞ্চল্যকর মোড়। সারদায় একাধিক তদন্তকারী আধিকারিককে তলব করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই)৷ বুধবারই তাঁদেরকে সিজিও কমপ্লেক্স অর্থাৎ সিবিআই দফতরে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন আইপিএস অফিসার অর্নব ঘোষ৷ যিনি কিনা তৎকালীন সিটের প্রধান রাজীব কুমারের ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। এছাড়াও তৎকালীন রাজ্য পুলিশের সারদার তদন্তকারী অফিসার দিলীপ হাজরাকেও ডাকা হয়েছে৷ এমনটাই সিবিআই সূত্রের খবর৷

প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের গ্রেফতার নিয়ে তৎপর সিবিআই৷ ওই আইপিএস অফিসার কোথায় আছেন তা নিয়ে এখন তোলপাড় রাজ্য৷ একসময়ের দাপুটে অফিসার এখন অন্তরালে৷ তাঁর গ্রেফতারি নিয়ে আইনি পরামর্শ নিচ্ছেন সিবিআই অফিসাররা৷ মঙ্গলবার কলকাতায় আসেন সিবিআই এর যুগ্ম ডিরেক্টর পঙ্কজ শ্রীবাস্তব। তিঁনি সিজিও কমপ্লেক্সের সিবিআই দফতরে এসে এখানকার কর্মরত অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করেন৷

বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় তিনি সংবাদ মাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে ক্যামেরার সামনে কিছু বলতে চাননি৷ শুধু বললেন, যা বলার দিল্লির হেড অফিস থেকে বলবে৷ তবুও গাড়িতে উঠতে উঠতে জানান, কয়েকজন পুলিশ অফিসারকে ডাকা হয়েছে৷ বিধাননগরের প্রাক্তন গোয়েন্দা প্রধান অর্ণব ঘোষকে ডাকা হয়েছে কিনা সে বিষয় তিনি মুখ খুলেননি৷

উল্লেখ্য, সারদা মামলায় তৎকালীন বিধাননগরের গোয়েন্দা প্রধান ছিলেন অর্ণব ঘোষ। এর আগেও তাঁকে সিবিআই নোটিস পাঠিয়ে তলব করেছিল৷ কিন্তু সেসময় তিনি গরহাজির ছিলেন৷ একইসঙ্গে তলব করা হয়েছিল দিলীপ হাজরা, শঙ্কর ভট্টাচার্য, প্রভাকর নাগ নামে তিন অফিসারকেও। এঁরা সবাই সুদীপ্ত সেন এবং দেবযানী মুখোপাধ্যায়দের জিজ্ঞাসাবাদে যুক্ত ছিলেন৷

মঙ্গলবার সকালে, সারদা কাণ্ডের প্রথম তদন্তকারী অফিসার, প্রভাকর নাথকে জিজ্ঞাসাবাদ করে সিবিআই৷ রাজ্য সরকার সারদা কাণ্ডে যখন সিট গঠন করে, তখন প্রথম তদন্তকারী অফিসার ছিলেন তিঁনি৷ মঙ্গলবার সকালে ঘন্টাখানের তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়৷ তারপর তিঁনি সিবিআই দফতর থেকে বেরিয়ে যান৷ ফের দুপুরে তিনি সিবিআই দফতরে আসেন৷ এবং দ্বিতীয়বার তাকে বেশ কয়েক ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়৷ সকালে কোনও নথি না নিয়ে আসলেও বিকালে কিছু নথি সিবিআইকে দিয়েছেন বলে খবর৷

এদিন নবান্ন থেকে যে নির্দেশিকা বের হয়েছে তাতে অর্ণব ঘোষকে এস এস সিআইডি পদ দেওয়া হয়েছে৷ এর আগে তিঁনি মালদার পুলিশ সুপার ছিলেন৷ এরপর তাঁকে সেকেন্ড ব্যাটেলিয়নে পাঠানো হয়। এবার তাঁকে ভবানী ভবনে নিয়ে আসা হল৷ অন্যদিকে আইপিএস রাজীব কুমারকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য রাজ্য সরকার চিঠি পাঠিয়েছে। চিঠিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রককে জানানো হয়েছে, রাজীব কুমারকে এডিজি-সিআইডি পদে বহাল করতে চায় রাজ্য।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.