ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: শনিবার কলকাতায় এসে সারদা- নারদকাণ্ড নিয়ে তৃণমূলকে কটাক্ষ করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ৷ অন্যদিকে হরিশ মুখার্জি রোডের একটি রাষ্টায়ত্ত্ব ব্যাংকের শাখায় তৃণমূল কংগ্রেসের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের নথি চেয়ে চিঠি দিয়েছে সিবিআই৷

সিবিআই সূত্রে খবর, তৃণমূলের অ্যাকাউন্টে দুই বছরে ২০-২৫টি বেনামি ড্রাফট জমা পড়েছে। প্রত্যেকটি ড্রাফটের টাকার অঙ্ক দশ লাখের বেশি৷ সিবিআই-এর প্রশ্ন ওই ডিমান্ড ড্রাফটগুলি কারা দিয়েছিল, তাঁদের নাম-ঠিকানা৷ এবং কী উদ্দেশ্যে তা তৃণমূলের দলীয় অ্যাকাউন্টে জমা দেওয়া হয়েছে?

পড়ুন: ‘এক দেশ, এক ভোট’ চেয়ে কমিশনে চিঠি অমিতের

২০১৫ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের ২১টি অ্যাকাউন্টের লেনদেনের নথিপত্র চেয়ে পাঠিয়েছিল সিবিআই৷ সেই নথি পরীক্ষা করতে গিয়ে নজরে আসে বেনামি ডিমান্ড ড্রাফটের বিষয়টি৷ তবে এই বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেস এবং ওই ব্যাংকের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি৷ যদিও তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যাপাধ্যায় এবছর ২১শের মঞ্চ থেকে সিবিআই ও ইডির উদ্দেশ্যে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিলেন, তাঁরা এই তদন্তকারী সংস্থাকে আদৌ ভয় পাচ্ছেন না৷

সেদিনই তিনি সভামঞ্চ থেকে বলেছিলেন, ‘‘নতুন করে আবার সিবিআই পাঠাতে পারে, নতুন করে আবার ইডি পাঠাতে পারে, আমাদের কোনও যায় আসে না৷ হাতে এজেন্সি আছে বলে যা ইচ্ছে করতে হবে৷ আমার হাতেও তো অনেক কেস আছে কিন্তু আমি তো আজ পর্যন্ত কিছু করিনি৷’’