স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: চিটফান্ড কেলেঙ্কারির তদন্তের গতি আনতে ফের নড়েচড়ে বসল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা৷ গ্রেফতার করা হল চিটফান্ড সংস্থা পৈলান গ্রুপের অন্যতম এক ডিরেক্টরকে৷ শিয়ালদহ থেকে তাকে গ্রেফতার করে সিবিআই৷ ধনঞ্জয় কুমার সিংহ নামে ওই ডিরেক্টরকে সল্টলেক সিজিও কমপ্লেক্সের সিবিআই দফতরে নিয়ে আসা হয়েছে৷ সেখানেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে সিবিআই৷ সিবিআই সূত্রে খবর,ওই ডিরেক্টর শিয়ালদহ হয়ে পালানোর চেস্টা করেছিল৷ সেই সময় তাকে গ্রেফতার করা হয়৷ এছাড়া খোঁজ চলছে সংস্থার চেয়ারম্যান অপূর্ব সাহার৷

সারদা, নারদা ও রোজভ্যালির তদন্তে নেমে সিবিআই আরও একাধিক বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থা হদিস পায়৷ তার মধ্যে রয়েছে পৈলান গ্রুপের নামও৷ তারপরই ওই সংস্থার বিভিন্ন অফিসে তল্লাশি চালায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা৷ জানতে পারে বাজার থেকে ২০০ কোটির বেশি টাকা তুলেছে ওই সংস্থা৷

আরও পড়ুন : বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় রাজ্যের দিকে দিকে জন্মাষ্টমী পালন করল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ

২০১৮ সালে জুলাই মাসে সিবিআইয়ের বেশ কয়েকটি টিম পৈলান গ্রুপের বিভিন্ন অফিসে হানা দেয়৷ পৈলান গ্রুপের কলকাতা, সোনারপুর, আক্রা-সন্তোষপুরের অফিস ছাড়াও বাঁকুড়া জেলাতেও হানা দেন সিবিআই অফিসাররা৷ এমনকী, সংস্থার কর্ণধার অপূর্ব সাহার বালিগঞ্জের বাড়িতেও সিবিআইয়ের একটি দল তল্লাশি চালায়৷

এই সংস্থার বিরুদ্ধে বাজার থেকে বেআইনিভাবে কয়েক শত কোটি টাকা তোলার অভিযোগ রয়েছে৷ এদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েক বছর আগে প্রায় ২০০ কোটি টাকা আর্থিক তছরুপের মামলা রুজু হয়৷ অভিযোগ, বাজার থেকে আরও বেশি টাকা তুলেছে পৈলান গ্রুপ৷ তদন্তে নামার পর সিবিআইয়ের হাতে বেশ কিছু তথ্য আসে৷

আরও পড়ুন : সরশুনা প্রতারণাকাণ্ডে গ্রেফতার আরও এক মুকুল ঘনিষ্ঠ

সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া অর্থাৎ সেবি বার বার নিষেধ করা সত্ত্বেও চিটফান্ড সংস্থাগুলি সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা তুলছে। সেবি ৫০টির বেশি সংস্থার নাম করে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করে, যাতে তাঁরা বেশি টাকার লোভের ফাঁদে পা না দেন৷‌

সেবি যেসব সংস্থাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে, সেগুলির বেশিরভাগই পশ্চিমবঙ্গের৷‌ যার মধ্যে রয়েছে সারদা রিয়েলটি ইন্ডিয়া, রোজ ভ্যালি রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন‍্স, সাই প্রসাদ প্রপার্টি, সান-প্ল্যান্ট অ্যাগ্রো, এনজিএইচআই ডেভেলপার্স ইন্ডিয়া ও এমপিএস গ্রিনারি ডেভেলপার্স ও আরও কিছু সংস্থা৷