নয়াদিল্লি: আশঙ্কা সত্যি হল৷

সমস্ত উড়ান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেট এয়ারওয়েজ। অর্থ সংকটে কারণেই এই সিদ্ধান্ত৷ এমনই জানিয়েছে অন্যতম এই বিমান সংস্থা৷ বিপাকে পড়েছেন বহু কর্মী ও তাঁদের পরিবার৷

অর্থ সংকটের কারণে খুব শীঘ্রই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে জেট এয়ারওয়েজ এই খবর ছড়িয়েছিল। এর জেরে শেয়ার বাজারে জেট বিমান সংস্থার দর ২০ শতাংশ পড়ে যায়। এরপর রাতেই এসেছে দুঃসংবাদ৷ আপাতত বন্ধ করা হচ্ছে এই বিমান সংস্থার সব উড়ান৷ মনে করা হচ্ছে, জেট এয়ারওয়েজ যদি দ্রুত দৈনিক উড়ান সংখ্যা না বাড়ায় তবে লাইসেন্স পর্যন্ত বাতিল হয়ে যেতে পারে৷

সংস্থার প্রতিদিনের খরচ চালাতে জেট এয়ারওয়েজের সিইও বিনয় দুবে সংস্থার তরফে ৪০০ কোটি টাকা ঋণ চান। মঙ্গলবার সেই আবেদন খারিজ হয়। কিন্তু ব্যাঙ্কগুলি তা দিতে অস্বীকার করে। এর পরেই উড়ান বন্ধ রাখার কথা জানানো হয়৷ গত কয়েক দিন ধরে দিনে মাত্র ৩৫-৪০টি উড়ান পরিচালনা করছিল জেট কর্তৃপক্ষ৷ আগে এই সংখ্যা ছিল ১০০টি৷

অর্থ সংকটের কারণে গত জানুয়ারি মাস থেকেই জেট এয়ারওয়েজ তার কর্মীদের বেতন দিতে পারেনি৷ এদিকে ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণের কিস্তি বাকি পড়ছিল। সংস্থার উচ্চ আধিকারিকদের বেতন ২৫ শতাংশ কমিয়ে দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে কমতে থাকে উড়ান সংখ্যা।