মাদ্রিদ: করোনা ভাইরাস অতিমারির জেরে থমকে গিয়েছে বিশ্ব অর্থনীতি। প্রান্তিক মানুষদের অবস্থা আর শোচনীয় হয়ে উঠেছে বিগত কয়েকমাসে। সাধারণ মানুষ গৃহবন্দি অথচ মৃত্যুমিছিল আটকাতে নিজেদের জীবনকে বাজি রেখে দিনরাত এক করে চলেছেন দেশ-বিদেশের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীরা। করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ফ্রন্টলাইন হিরো তারাই। এযাবৎ তাদের কুর্নিশ জানিয়ে নানাভাবে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন দেশ-বিদেশের অ্যাথলিটরা। তালিকায় নবতম সংযোজন স্পেনের অলিম্পিক সোনাজয়ী শাটলার ক্যারোলিনা মারিন।

চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীদের কুর্নিশ জানিয়ে এক মহৎ দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চলেছেন ২০১৬ রিও অলিম্পিকে সোনাজয়ী মহিলা শাটলার মারিন। চার বছর আগে ব্রাজিলের রাজধানী শহরে যিনি ভারতীয় শাটলার পিভি সিন্ধুকে হারিয়ে সোনা জিতেছিলেন। স্পেনের রাজধানী শহর মাদ্রিদের ভার্জেন দেল মার হসপিটাল কোভিড১৯ মোকাবিলায় সম্প্রতি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে। আর দুঃসময়ে সেই ফ্রন্টলাইন হসপিটালের চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীদের সম্মান জানিয়ে অলিম্পিক সোনা সহ তাঁর সমস্ত মেজর খেতাব তাঁদের হাতে তুলে দিতে চলেছেন স্প্যানিশ শাটলার।

কোভিড১৯ মোকাবিলায় ফ্রন্টলাইন হিরোদের সম্মানার্থে মারিনের এই উদ্যোগ স্বাভাবিকভাবেই প্রশংসা কুড়িয়ে নিয়েছে। সম্প্রতি ওই হাসপাতালের নার্স-চিকিৎসকদের সঙ্গে ভিডিও কলে সাক্ষাৎ করেছেন মারিন। দুঃসময়ে সাধারণ মানুষের জন্য তাঁদের নিরন্তর পরিষেবাকে কুর্নিশ জানিয়ে তাঁর সমস্ত পদক তুলে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন ২৭ বছরের শাটলার। ভারতের প্রথম সারির এক সংবাদমাধ্যমকে মারিন জানিয়েছেন, ‘আমি উনাদের সঙ্গে কথা বলেছি এবং আমার সমস্ত পদক তাঁদের হাতে তুলে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছি। কারণ স্পেনের মানুষের কাছে ওরাই বাস্তবের নায়ক। ওদের এই সাধুবাদ প্রাপ্য।’

পরবর্তীতে বার্সেলোনার একটি ফ্রন্টলাইন হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গেও কথা বলবেন মারিন। উল্লেখ্য, স্যানিতাস সিমা নামক বার্সেলোনার ওই হাসপাতাল একশো পেরনো এক কোভিড১৯ আক্রান্তকে ফের জীবনের মূলস্রোতে ফিরিয়ে এনেছে। এপ্রসঙ্গে মারিন জানিয়েছেন, ‘এমন ঘটনা ভীষণই অনুপ্রেরণাদায়ক। আমি ওই হাসপাতালকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। ওরা অবিশ্বাস্য একটা কাজ করেছে। আমি ফ্রন্টলাইন হিরোদের অসংখ্য ধন্যবাদ জানাতে চাই যারা নিজেদের জীবনকে বাজি রেখে সাধারণ মানুষের জীবন রক্ষা করে চলেছেন প্রতিনিয়ত।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ