বাইরে রোদের তাপ, গরমে ঘামে মাথায় ছাতা নিয়ে  বাসস্টপে দাড়িয়ে আপনি। সান্সস্ক্রিন থেকে লাইট মেক-আপ সব গলে গ! সেই অবস্থায় অফিস। ব্যাস! তারপর এ সির শীতলতা আপনাকে একদম চাঙ্গা করে দিল।
এই দৃশ্য ছাড়াও আরেকটা দৃশ্য হল, গাড়ি ছাড়া ম্যাডাম এক পাও নড়েন না, এমন অবস্থায় গেল স্কিনের বারোটা বেজেছে। ঘন ঘন বিউটি পার্লার ছাড়া গতি নেই। কারণ, এ সিতে থাকলে এমনিতেই শরীরের জলের অভাব দেখা দেয়। যে ঘরে এ সি চলছে, সেখানকার বাতাস খানিকটা মরু অঞ্চলের বাতাসের মতোই শুষ্ক হয়ে যায়, আমাদের ত্বকে যে ময়শ্চার থাকে তাও বের করে দেয়। ফলে, ত্বকের ময়শ্চার ব্যালেন্স নষ্ট হয়৷  ত্বক শুষ্কও খসখসে হয়। বহুদিন ধরে দীর্ঘক্ষণ এ সিতে থাকতে থাকতে ত্বক ক্রমশ কুঁচকে যায়। যার ফলে আপনাকে বেশি বয়স্ক দেখায়।
এক্ষেত্রে ঘরোয়া কিছু টিপস আছে। যা, আপনাকে এ সিতেও রাখবে সতেজ। স্কিনের জেল্লাও থাকবে অটুঁট। তার জন্য কী করবেন জেনে নিন:

  • সাবানের পরিবর্তে ক্লিনজিং মিল্ক বা জেল দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন৷ কারণ, সাবান ত্বককে শুষ্ক করে।
  • মাসে একদিন ফেসিয়াল করুন।
  • ত্বক মসৃণ,টানটান এবং উজ্জ্বল রাখার জন্য টোনিংয়ের  কোনও বিকল্প নেই। তুলোয় গোলাপ জল দিয়ে মুখ মুছে নিতে পারেন।
  • নিয়মিত মুখে ও গলায় ময়শ্চারাইজিং লোশন বা ক্রিম মাসাজ করুন। এতে ত্বক শুষ্ক হবে না।
  • এ সিতে থাকলে দু’ঘণ্টা অন্তর অবশ্যই ময়শ্চারাইজার লাগান। এটি ত্বকের স্বাভাবিক আদ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে।
  • কমলালেবুর রস মিশিয়ে লাগান মাঝে মধ্যে।এতে, ত্বক নরম ও মসৃণ হয়৷

কী করবেন না-

সারা রাত এ সি চালিয়ে শোবেন না। ফ্যানের ব্যবহার করুন। ঘুমোবার আগে মিনিট ২০ এ সি চালিয়ে রুম ঠাণ্ডা করে নিন। এরপর ফ্যান চালিয়ে শুয়ে পড়ুন৷

Comments are closed.