নয়াদিল্লি: শুক্রবার রাতে এক ভয়াবহ দুর্ঘটনার সাক্ষী থাকল ভারত। বিদেশ থেকে ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনার মিশনেই এই দুর্ঘটনা। দুবাই থেকে ফিরিয়ে আনা হচ্ছিল ভারতীয়দের। কোঝিকোড়ে রানওয়েতে অবতরণের সময় ভেঙে দু’টুকরো হয়ে যায় সেই বিমান। মৃত্যু হয়েছে পাইলট, কো-পাইলট সহ বিমানের ১৯ জন যাত্রী।

জানা গিয়েছে ওই বিমানের ককপিটে পাইলট ও কো-পাইলট হিসেবে ছিলেন উইং কমান্ডার দীপক বসন্ত সাথে ও ক্যাপ্টেন অখিলেশ কুমার।

ক্যাপ্টেন দীপক সাথে ছিলেন ভারতীয় বায়ুসেনার একজন ফাইটার পাইলট। পরে বাণিজ্যিক বিমান ওড়ানো শুরু করেন তিনি। ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমির প্রাক্তন ছাত্র এই দীপক সাথে। বোয়িং ৭৩৭ বিমান ওড়ানোয় দক্ষ তিনি।

এক অফিসার জানিয়েছেম এই দীপক সাথে ভারতীয় বায়ুসেনার একজন দক্ষ পাইলট ছিলেন। তিনি প্রেসিডেন্ট স্বর্ণ পদকও পেয়েছিলেন। হায়দরাবাদে তিনি ‘সোর্ড অফ অনার’ পান। বাণিজ্যিক বিমান চালানোর আগে একাধিক যুদ্ধবিমান উড়িয়েছেন তিনি।

জানা গিয়েছে ক্যাপ্টেন অখিলেশ কুমার গত বছরেই বিয়ে করেছেন। করোনার জন্য আটকে পড়া ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব পেয়েছিলেন তাঁরা।

জানা গিয়েছে ৩৫ ফুট উঁচু থেকে পড়ে যায় বিমানটি। আর তার ফলেই এই দুর্ঘটনা ঘটে।

ভারতের বন্দে ভারত মিশনের অধীনেই এই বিমান দুবাই থেকে আসছিল। সেখান থেকে আটকে থাকা যাত্রীদের নিয়ে আসা হচ্ছিল। কোঝিকোড়ের কারিপুর এয়ারপোর্টের রানওয়ে পেরিয়ে পড়ে যায় বিমানটি।

ভারতের অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী বলেন, বৃষ্টির জন্যই এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে। খারাপ আবহাওয়ার জন্য ৩৫ ফুট গভীরে পড়ে যায় বিমানটি। আর তাতেই দু ভাগে ভেঙে যায় ওই বিমান।

তিনি জানিয়েছেন এটি একটি টেবিল টপ এয়ারপোর্ট, তাই এখানে অবতরণ খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। টেবিল টপ এয়ারপোর্ট অর্থাৎ যেখানে রানওয়ের দু’পারে রয়েছে খাদ। আর সেখানেই ৩৫ ফুট খাদে পড়ে গিয়েছে বিমানটি। যদিও ইঞ্জিনে আগুন না লাগায় প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন অনেকেই।

ডিজিসিএ-র তরফে জানানো হয়েছে, দুবাই-কোঝিকোড় এয়ারক্রাফটটি ছিল ফুল স্পিডে। প্রথন চেষ্টায় নামতে পারেনি ওই বিমান। দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় সেটি নামে।

এই ঘটনার পর সংযুক্ত আরব ও আমিরশাহির তরফের ভারতীয় দুতাবাস জরুরি হেল্পলাইন নম্বর চালু করে। এবং তাঁরা শোক প্রকাশ করে জানায়, ” এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেস ফ্লাইট নম্বর এIX 1344 , দুবাই থেকে কারিপুর যাত্রা পথ ছিল। রানওয়েতে অবতরণের পর পিঁছলে যায় এবং ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। আমরা সব যাত্রীদের সুস্থতা কামনা করি। যাত্রী এবং বিমানে থাকা সকলের পরবর্তী খোঁজ পাওয়া যাবে আমাদের হেল্প লাইন নম্বর, 056 546 3903( ০৫৬ ৫৪৬ ৩৯০৩), 0543090572 (০৫৪৩০৯০৫৭২), 0543090572(০৫৩০৯০৫৭২), 0543090575 (০৫৪৩০৯০৫৭৫)”।

এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসে জরুরি হেল্পলাইন নম্বর চালু করেছে আরব আমিরশাহির সারজাতে। এখানেও পাওয়া যাবে জরুরি তথ্য। (00971 6 5970303) ০০৯৭১৬৫৯৭০৩০৩ তাঁদের নম্বর। তবে এখনও আহতদের পুরো তথ্য পাওয়া যায়নি, বাড়তে পারে আহত এবং নিহতের সংখ্যা।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা