সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় : একদিকে রাখা হবে কামান সঙ্গে হবে অঞ্জলি। রাজবাড়ির গপ্পো নয়। এ পুজো বারোয়ারি। তবে এই কামান ও অঞ্জলি দান একটু অন্যভাবে হবে। অনলাইনে হবে অঞ্জলি, আর কামান দাগা মানে গোলাবারুদের কামান নয় স্যানিটাইজিং কামান। পরিকল্পনায় দক্ষিণ কলকাতার মুদিয়ালি ক্লাব।

এবার বেশিরভাগ পুজো উদ্যোক্তাদের এবারের উদ্দেশ্য মোটেই থাকছে না উৎসব। প্রত্যেকেই সমাজের স্বার্থে এবং উদ্দেশ্যে নিজের কাজ করতে চাইছেন। উদ্যোক্তাদের মধ্যে থাকছে সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতাও। আর এবার বর্তমান পরিস্থিতির কথা ভেবে মুদিয়ালি ক্লাবের থিম ‘দায়’। এই সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই এই ভাবনা তাঁদের। অনলাইনে অঞ্জলি হলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে। আবার স্যানিটাইজিং কামান দিয়ে তাঁরা স্যানিটাইজ করাতেও চাইছে। ঢাকে কাঠি পড়ে গেছে। ইতিমধ্যেই বেশিরভাগ পুজো প্যান্ডেল গুলো সেরে ফেলেছে খুঁটিপুজোর কাজ। কারণ হয়ে গিয়েছে মহালয়া। যদিও এবার মহালয়ার প্রায় এক মাস পর পুজো। ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে কাউন্টডাউন। তবে চলতি বছর পুজো নিয়ে উদ্যোক্তাদের কপালেও পড়েছিল চিন্তার ভাঁজ। সেই চিন্তার ভাঁজ কপালে রেখেই পুজো করছে ক্লাবগুলি। একই ভাবেই কাজ করছে মুদিয়ালিও।

‘মুদিয়ালি’ পুজো কমিটির এক কর্তা বলেন, ‘ভোগ আমাদের এখানে সবাই বসে খায়। তবে এবারে ব্যবস্থা করেছি ছোট বক্সের মাধ্যমে সেইগুল মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার। ঘরে বসেই মানুষ যাতে পুজোর আনন্দ উপভোগ করতে পারেন, আমরা সেই চেষ্টা চালাচ্ছি। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে যে পুজো দেখানো হয়, তেমন পুজো-পরিক্রমা নয়। এটা একেবারে অন্য আঙ্গিকে দেখানো হবে । প্রাথমিকভাবে ঠিক করেছি, কলাবউ স্নান থেকে শুরু করে মহাষ্টমীর অঞ্জলি, বা সন্ধিপুজোর মতো সব আচার-অনুষ্ঠানগুলিকে দেখানো হবে অনলাইনে। সরাসরি সম্প্রচারিত হবে চণ্ডীপাঠ থেকে আরতি। সেইসঙ্গে মণ্ডপসজ্জা, আলোকসজ্জা তো আছেই।’

একইসঙ্গে তাঁরা জানিয়েছেন , ‘করোনা ক্যানন বসাচ্ছি আমরা। এটি প্রায় ১০০০ বর্গফুট এলাকায় করোনা ভাইরস ধ্বংস করতে সক্ষম। কামানের মতো দেখতে এই মেশিন হাইপারচার্জ হাই ভেলোসিটি ইলেক্ট্রন তৈরি করে এবং সেটি এস প্রোটিনের সঙ্গে নেগেটিভ শক্তি হিসাবে বিক্রিয়া করে জীবাণু ধ্বংস করবে। পুলিশের পক্ষে সমস্ত পুজো কমিটিকেই কাছে জানতে চাওয়া হচ্ছে করোনা মোকাবিলায় কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। সেই ব্যবস্থা ও গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ থেকেই এই কাজ করছি আমরা। এবারের পুজো তো দায়বদ্ধতার’

আগে স্যানিটাইজার টানেল বসানোর চিন্তা ভাবনা করা হয়েছিল। কিন্তু তা করা যায়নি, কারণ সুপ্রিম কোর্টের ‘না’ রয়েছে এতে। কিন্তু দর্শকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার মাথায় রেখে স্যানিটাইজার কামান বসাচ্ছে মুদিয়ালি পুজো কমিটি। পাশাপাশি যারা কাজ করবেন তাঁদের নিরাপত্তাও নিশ্চিত করতে চাইছে দক্ষিণ কলকাতার এই হেভিওয়েট পুজো কমিটি।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।