কলকাতা: লোকসভার আগে রাজ্যসভার নির্বাচনকে ঘিরে কংগ্রেস ও সিপিএমের আঁতাতে ফলে অস্বস্তিতে পড়েছেন একাধিক সিপিএম ও কংগ্রেসের নেতা৷ মঙ্গলবার দুপুরে বিধানসভায় বাম-কংগ্রেস মনোনীত নির্দল প্রার্থী মালিয়াবাদী মনোনয়ন জমা দেন৷ মূলত তৃণমূলের মনোনীত চতুর্থ প্রার্থীকে হারাতে রাজ্যসভা নির্বাচনে জোট গড়ে কংগ্রেস ও সিপিএম তাদের সমর্থিত প্রার্থী সৈয়দ মালিয়াবাদীকে জেতাতে চাইছে৷ সিপিএম ও কংগ্রেসের এই আঁতাত নিয়ে দু’দলের একাধিক বিধায়ক ও নেতার মধ্যেই ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে৷ কারণ লোকসভার  নির্বাচনের আগে যেখানে সিপিএম ও কংগ্রেসের নিজেদের মধ্যে সমদূরত্ব বজায় রাখা উচিৎ৷  সেখানে দাঁড়িয়ে কিভাবে তারা একসঙ্গে  প্রার্থী ইস্যুতে জোটবদ্ধ হল সেই নিয়ে দু’দলের আভ্যন্তরে দ্বন্দ্বের সূত্রপাত হয়েছে৷ তবে এই বিষয়ে সিপিএমের শীর্ষনেতৃত্ব অবশ্য নিশ্চুপ রয়েছেন৷ কংগ্রেসের সঙ্গে তাদের গোপন বোঝাপড়া যে লোকসভার আগে থাকছে সেটাই আবার স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে রাজ্যসভায় কংগ্রেস সমর্থিত প্রার্থীকে সমর্থন করা নিয়ে৷ এই পরিস্থিতিতে অনেক বাম বিধায়কই মালিয়াবাদীর মনোনয়নে সই করতে আগ্রহ দেখাননি বলে খবর৷ অনেককে ইচ্ছার বিরু‌দ্ধে সই করতে হয়৷ অন্যদিকে কংগ্রেস ও সিপিএমের মধ্যে এই জোট হওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রদেশ কংগ্রেসের একাধিক নেতা৷ এইভাবে আঁতাতের বিষয়টি প্রকাশ্যে থাকায় ভোটের আগে মানুষের কাছে কী জবাব দেবেন তা নিয়ে চিন্তিত সিপিএম ও কংগ্রেসের বেশকিছু নেতৃত্ব৷ কারণ গত দু’দশক ধরে  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিপিএম ও কংগ্রেসের গোপন আঁতাত নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন৷ সেই পটভূমিকায় একজোটে প্রার্থী মনোনয়ন লোকসভা ভোটের আগে তৃণমূলের পালে হাওয়া  দিল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও