স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: প্রায় আট মাস ধরে ঠোঁটের ক্যান্সারে আক্রান্ত বর্ধমানের দক্ষিণ দামোদরের এক ব্যক্তি বিভিন্ন জায়গায় চিকিত্সা করিয়েও কোনো সুফল না পাওয়ায় বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রথমবার তাঁর প্লাষ্টিক সার্জারী করা হল।

বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইতিহাসে প্রথম এই প্লাষ্টিক সার্জারি সফল হওয়ায় খুশী চিকিত্সক মহল। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্প্রতি ওই ব্যক্তি বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিত্সা করাতে আসেন। তাঁকে ইএনটি বিভাগে যাবার পরামর্শ দেওয়া হয়।

এরপর ইএনটি বিভাগের চিকিত্সকরা তাঁকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখেন তিনি ঠোঁটের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁকে ভরতি হওয়া এবং অপারেশন করার কথা জানানো হয়। এরপরই গত মঙ্গলবার সকাল ১০টায় তাঁর অপারেশন করা হয়। বর্তমানে ওই রোগী হাসপাতালেই পর্যবেক্ষণে ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন। চিকিত্সকরা জানিয়েছেন, অস্ত্রোপচার সফল। তবে সাত দিন না পার হওয়া পর্যন্ত তাঁরা নিশ্চিত নন।

হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে গত মঙ্গলবার টানা নয় ঘন্টা ধরে এ্‌ই সার্জারি করা হয়। ১৪ জনের টিম গঠন করে এই সার্জারি করা হয়। ১৪ জনের টিমে প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের এক জন, নাক-কান-গলা বিভাগের আট জন ও অ্যানাসথেসিস-এর পাঁচ জন চিকিৎসক ছিলেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় অস্ত্রোপচার শুরু হয়। রোগীর ঠোঁটের নীচে ঘায়ের জায়গাটি কেটে হাতের চামড়া নিয়ে ঠোঁটের জায়গাটি পূরণ করা হয়। প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক কুশল আনন্দ, নাক-কান-গলা বিভাগের ডাঃ গণেশ গাইনের টিম ও অ্যানাসথেসিস বিভাগের ডাঃ সুস্মিতা ভট্টাচার্যের টিম মিলে এই অস্ত্রোপচার করেন।