নয়াদিল্লি: দেশের বিদ্যুতের গতিতে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এই ভাইরাসের রাশ টানতে চিকিৎসকরা নানা পরামর্শ দিচ্ছেন। এর মাঝে নানা মানুষ ঘরোয়া টোটকার ব্যবহার করে যাচ্ছে। অনেকের মনেই প্রশ্ন উঠেছে যে, গরম জল পান করলে বা স্নানের সময় গরম জল ব্যবহার করলে কি এই ,মারণ ভাইরাসকে দূরে রাখা যাবে ?এই মিথের উত্তরটি শনিবার mygovindia টুইটার হ্যান্ডেলের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে।

কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে যে, একটা মিথ প্রচারিত হচ্ছে যে গরম জল দিয়ে স্নান করলে বা গরম জল পান করে কোভিড -১৯ এড়ানো যেতে পারে। কিন্তু এটি ভাইরাসকে মেরে ফেলতে পারে না এবং এটির মাধ্যমে রোগ নিরাময় করা যায় না। ল্যাব টেস্টিংয়ে প্রমাণিত করোনাভাইরাসকে মারতে হলে ৬০ থেকে ৭৫ ডিগ্রি তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। আমরা কখনই এত গরম জল পান করি না বা স্নানের কাজে ব্যবহার করিনা। সুতরাং গরম জলে স্নান বা গরম জল পান করলে যে করোনাকে দূরে রাখা যাবে এটা মিথ ছাড়া আর কিছুই না।

সরকার মারণ রোগ থেকে নিরাময়ের জন্য পাঁচটি স্টেপে খাবার তালিকা তৈরী করার পরামর্শ দিয়েছে। বলা হয়েছে এই খাবার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলবে এবং করোনার পরে শরীরের দুর্বলতা এবং অবসাদ থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করবে।

১. সকাল শুরু করতে হবে ভেজানো বাদাম এবং কিসমিস দিয়ে। প্রোটিন শরীরে প্রোটিন সরবরাহ করে ,এবং কিসমিস আয়রন সরবরাহ করে।

২.সকালের ব্রেকফাস্টের জন্যে ডালিয়া খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

৩. দুপুরের খাবারের সময় বা পরে গুড় ও ঘি খাওয়া যেতে পারে। একই সাথে এই দুটি জিনিস রুটির সঙ্গে মিশিয়েও খাওয়া যেতে পারে।

৪. রাতে সাধারণ খিচুড়ি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এটি খুব তাড়াতাড়ি হজম হয় এবং রাতের ঘুমও ভালো হয়।

৫.হাইড্রেটেড থাকা জরুরী। জলের পাশাপাশি আপনার খাবারের তালিকায় লেবুর রস এবং বাটার মিল্ক যুক্ত করা যেতে পারে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.