ফাইল ছবি

রায়পুর: ফের বড়সড় সেক্স ব়্যাকেটের পর্দা ফাঁস করল পুলিশ৷ ছত্তিশগড়ের রায়পুরে রমরমিয়ে চলা দেহব্যবসার কাজে প্রায় ৬ যুবতীকে গ্রেফতার করা হয়েছে সাত গ্রাহকসহ৷ রবিবার মধ্যরাত পর্যন্ত এক অভিঝাত এলাকায় হানা দিয়ে বহু নগ্ন অবস্থায় থাকা যুবক-যুবতীকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

জানা গিয়েছে, গ্রেফতার হওয়া যুবতীরা মুম্বই এবং কলকাতার৷ তারা চুক্তির ভিত্তিতে রায়পুরে এসেছিল৷ গত ২৮ দিন ধরে তারা কাজ চালিয়ে গেলেও শেষ দিনে ধরা পড়ে যায় তারা৷ রবিবার রায়পুরে বোরিয়াকলার হাউজিং বোর্ড কলোনীতে হানা দেয় পুলিশ৷ ওই কলোনী পুলিশ ঘিরে ফেলায় কেউ পালাতে পারেনি৷

আরও জানা যায়, এই দেহব্যবসার চক্রের মূলকে ধরতে তল্লাশি জারি রয়েছে পুলিশের৷ একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের মাধ্যমে মেয়েদের ছবি আদান প্রদান হত৷ পাঠানো হত গ্রাহককেও৷ পছন্দমতো চলতো কাজ৷
গ্রেফতার হওয়া যুবতীদের থেকে ৮ টি মোবাইল, আপত্তিজনক জিনিসপত্র, ট্যাবলেট, হিসেব-নিকেশের ডায়েরিসহ ৬১ হাজার টাকা বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ৷ পাশাপাশি পিটা অ্যাক্টে তাদের বিরুদ্ধে মামলাও করা হয়েছে৷

প্রসঙ্গত, গত শনিবারই মুম্বইয়ের ভয়ন্ডর এলাকায় দেহব্যবসার কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে ২ মডেল সহ মোট তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ মীরা রোডের একটি সালোঁতে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে ধৃত দুই মডেলকে ব্যবহার করত এক মহিলা৷ এক শো চলাকালীন ওই মডেলদের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল মহিলার৷ ২ মডেলের মধ্যে একজন কর্ণাটক এবং অপরজন বিহারের বলে জানা গিয়েছে৷ এছাড়া ওই সালোঁ থেকে আরও ২ মহিলাকে উদ্ধার করে পুলিশ৷

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশই সেখানে গ্রাহকবেশে এক ব্যক্তিকে পাঠায়৷ শনিবার সেখান থেকেই তিনজনকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান, ভয়ন্ডর অ্যাসিট্যান্ট সুপারিন্টেডেন্ট অব পুলিশ অতুল কুলকার্নি৷ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে৷