দিপালি সেন, কলকাতা: চতুর্থ আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালন করতে চলেছে যাদবপুর ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়৷ বৃহস্পতিবার এনএসএস (ন্যাশনাল সার্ভিস স্কিম) ও শরীরশিক্ষা বিভাগের সঙ্গে মিলিতভাবে এই দিনটি উদযাপনের পরিকল্পনা করেছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়৷ অন্যদিকে, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে শুধুমাত্র এনএসএস-এর পক্ষ থেকেই পালন করা হচ্ছে এই দিনটি৷

প্রতিদিন মানসিক চাপ বাড়ার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অসুস্থতা৷ সেই অসুস্থতা থেকে মুক্তির উপায় নিয়মিত যোগাভ্যাস৷ প্রাচীন ভারতে উদ্ভূত এক বিশেষ ধরনের শারীরিক ও মানসিক ব্যায়াম এবং আধ্যাত্মিক অনুশীলন প্রথা হল যোগ৷ ২০১৪ সালে ২৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাষ্ট্রসংঘে ভাষণ দেওয়ার সময় এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ঘোষণা করার প্রস্তাব দেন৷ সেই বছরই ১১ ডিসেম্বর রাষ্ট্রসংঘ সাধারণ পরিষদ ২১ জুন তারিখটিকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস বলে ঘোষণা করে৷

ঘোষণা অনুযায়ী, ২০১৫ সাল থেকে ২১ জুনে পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস৷ ২০১৮-তে চতুর্থ বর্ষে পা দিল আন্তর্জাতিক যোগ দিবস৷ আর এই দিনটিকে উদযাপন করতে এগিয়ে এসেছে কলকাতা ও যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়৷ যদিও, এই দিনটি পালনের কোনও পরিকল্পনা করা হয়নি রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে৷

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিবসের অনুষ্ঠান সকাল ১১টায় শরীর শিক্ষা বিভাগে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শুরু হবে৷ তারপর, আসনের উপকারিতা নিয়ে মিছিল ও আন্তর্জাতিক যোগ দিবসের উপর বিশেষজ্ঞদের ভাষণ থাকবে৷ অনুষ্ঠানের অংশ হিসাবে থাকবে যোগ প্রদর্শনী এবং প্রশিক্ষণও৷ এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদেরও দেওয়া হবে সার্টিফিকেট৷ সবশেষে জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে যবনিকা পতন হবে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগ দিবসের অনুষ্ঠানের৷

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে আবার শুধু এনএসএস থেকেই এই দিনটি উদযাপনের পরিকল্পনা করা হয়েছে৷ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (অর্থ) মিনাক্ষী রায় জানিয়েছেন, এনএসএস-এর তরফ থেকে কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাসে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে৷ যেখানে দর্শন বিভাগের একজন অধ্যাপিকা যোগের বিষয়ে ভাষণ দেবেন৷ তিনি আরও জানিয়েছেন, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্ত বিদ্যানগর কলেজে যোগ দিবস অনেক বড় করে পালন করা হয়৷ তাই এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে আধিকারিকরা ওই কলেজে যাবেন৷

তবে, চতুর্থ আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালন করা হচ্ছে না রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে৷ অন্য বছরগুলিতে এনএসএস থেকে যোগ দিবস পালন করা হয়ে থাকে৷ কিন্তু, এই বছর তাদের তরফ থেকেও এই দিনটি উদযাপনের কোনও পরিকল্পনা করা হয়নি৷ কেন এই বছর যোগ দিবস পালন করছে না এনএসএস? রেজিস্ট্রার দেবদত্ত রায় বলেন, ‘‘এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা চলছে৷ আমার মনে হয় যে ছাত্রছাত্রীরা এর পরিকল্পনা করে থাকে, তারা পরীক্ষায় ব্যস্ত রয়েছেন৷’’ এই বছর তাই যোগ দিবস পালনের জন্য কোনও উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না বলেই মনে করছেন তিনি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I