কলকাতা: পূর্ব ঘোষণা মত শহরের বিভিন্ন জায়গায় মিছিল করল জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ সংগঠন৷ নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতায় তাদের এই মিছিল৷ মিছিল ঘিরে শহর জুড়ে তীব্র যানজটের তৈরি হয়৷ যার জেরে ভোগান্তি হয় সাধারণ মানুষের৷ যদিও শহরকে যানজটমুক্ত করতে গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোতায়েন রাখা হয় পুলিশ আধিকারিকদের। প্রায় ঘন্টাখানেক পর যানজটমুক্ত হয় এলাকা।

কেন্দ্রীয় সরকারের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতায় পথে নেমেছে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ সংগঠন৷ শুধু কলকাতাই নয়, আজ শুক্রবার রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভ দেখালো তারা৷ সংগঠনের দাবি,সর্বত্র শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে শামিল হয়েছে কর্মী সমর্থকরা৷ জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) এবং সিএবি-র বিরোধিতায় কলকাতায় শীঘ্রই সমাবেশও করবে জমিয়তে।

বৃহস্পতিবার সংগঠনটির পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টে বিলটি অবৈধ ঘোষণার জন্য আবেদন করা হয়েছে। ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লিগের দায়ের করা সুপ্রিম কোর্টের আবেদনে বলা হয়েছে, বিলে সাম্যতা, মৌলিক অধিকার এবং জীবন রক্ষা অধিকারের অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করা হয়েছে। এই বিলের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতে যাওয়ার কথা আগেই জানিয়েছিল তাঁরা।

বুধবার এই বিল রাজ্যসভায় পাস হতেই আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় এই সংগঠনটি। এই মামলা প্রসঙ্গে (আইইউএমপিএল)-এর সাংসদ পিকে কুনহালিকুট্টি জানান, এই বিল সংবিধানের মৌলিক অধিকারের বিরোধী। তাই এই বিলের প্রতিবাদে আদালতে যাবেন তাঁরা। এই বিলের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা লড়বেন কংগ্রেস নেতা তথা সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী কপিল সিব্বল।

মঙ্গলবারই এই বিষয় নিয়ে আইইউএমএল নেতাদের সঙ্গে দেখা করেছেন কপিল সিব্বল। এই প্রসঙ্গে কপিল সিব্বল বলেন, ‘শুধুমাত্র বেছে বেছে ওই ছয়টি ধর্মীয় সম্প্রদায়ের কথাই কেন উল্লেখ করা হয়েছে? মুসলিম সম্প্রদায়ের কোনও উল্লেখ নেই কেন? বুধবার লোকসভার পর রাজ্যসভাতেও পাশ হয়ে যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (সিএবি)। ভোটাভুটিতে বিলের পক্ষে ১২৫টি ভোট পড়ে। বিপক্ষে ভোট ১০৫টি ভোট পড়ে। বৃহস্পতিবার রাতে রাষ্ট্রপতি সই করলেন এই বিলে৷ ফলে তা আইনে পরিণত হল৷