কলকাতা: আগামী নভেম্বরে এক ঐতিহাসিক মুহূর্তের সাক্ষী হতে চলেছে ক্রিকেটের স্বর্গোদ্যান ইডেন গার্ডেন্স। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২২-২৬ নভেম্বর ভারত-বাংলাদেশ দ্বিতীয় টেস্টে ইডেনের গ্যালারিতে পাশাপাশি বসে খেলা দেখবেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং শেখ হাসিনা। সূত্রের খবর, বেঙ্গল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের তরফ থেকে দুই প্রধানমন্ত্রীকে ইতিমধ্যেই আমন্ত্রণ জানানোর পালা সম্পূর্ণ হয়েছে। তবে সিএবি’র আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে মোদী-হাসিনা ওই ম্যাচে গ্যালারিতে থাকবেন কীনা, নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না এখনই।

দিনদু’য়েক আগেই বিশ্বকাপ ফুটবলের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচে ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ ঘিরে আবেগের মহাবিস্ফোরণ দেখেছে শহর কলকাতা। আর আগামী নভেম্বরে কলকাতার মাটিতে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে প্রথমবারের জন্য অনুষ্ঠিত হতে চলেছে কোনও টেস্ট ম্যাচ। তাই সেই ম্যাচ ঘিরেও যে এপার বাংলা ও ওপার বাংলার ক্রিকেটীয় আবেগের স্ফুলিঙ্গ দেখবে তিলোত্তমা, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। স্বাভাবিকভাবেই এমন একটি ঐতিহাসিক ম্যাচে গ্যালারিতে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতি নিশ্চিতভাবেই আলাদা মাত্রা যোগ করবে।

বোর্ড প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর নিজের শহরে অনুষ্ঠিত হতে চলা প্রথম টেস্ট ম্যাচে আয়োজনের যে কোনও খামতি রাখবেন না সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, সেটা একেবারেই নিশ্চিত। তারই প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে হয়তো মোদী-হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানিয়ে উন্মাদনা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিলেন তিনি। ওয়াকিবহাল মহল মনে করছে গোটা পরিকল্পনা মহারাজেরই মস্তিষ্কপ্রসূত। আগামী ২৩ অক্টোবর বোর্ডের এজিএমে ১০ মাসের জন্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করতে চলেছেন সৌরভ। তাই নভেম্বরে ভারত-বাংলাদেশ টেস্টে কলকাতার ক্রীড়াপাগল অনুরাগীদের জন্য আরও চমক তাঁর ঝুলিতে থাকলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। শোনা যাচ্ছে ইডেন টেস্টে আমন্ত্রিতের তালিকায় থাকতে পারেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান মমতা বন্দোপাধ্যায়ও। তবে না আঁচালে বিশ্বাস নেই। তাই গোটা বিষয়টি নিয়ে জল্পনা আপাতত তুঙ্গে।

তবে ২০১৬ ইডেনে টি-২০ বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচকেও আলাদা মাত্রা দিয়েছিলেন তৎকালীন সিএবি প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে অমিতাভ বচ্চনের কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত শুনে শিহরিত হয়েছিল ইডেনের গ্যালারি। পাশাপাশি গ্যালারিতে সেবার উপস্থিত ছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও। উল্লেখ্য, ৩টি টি-২০ ও ২টি টেস্ট ম্যাচ খেলতে আগামী নভেম্বরে ভারত সফরে আসছে বাংলাদেশ।