লখনউঃ  গোটা দেশজুড়ে ইতিমধ্যে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন কার্যকর করেছে। আর সেই নাগরিকত্ব আইন দেশজুড়ে কার্যকর হতেই কারা নাগরিকত্ব পাবে তা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে। বিশেষ করে বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলি এই বিষয়ে কিছুটা হলেও এগিয়ে। যদিও নাগরিকত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে এক ধাপ এগিয়ে উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকার। সংশোধনী আইনে কারা নাগরিকত্ব পাবেন, ইতিমধ্যেই তার প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে যোগী সরকার।

জানা গিয়েছে, নাগরিকত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে ইতিমধ্যে উত্তরপ্রদেশে সরকারি কাজকর্ম শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ২১টি জেলার ৩২,০০০ জনকে নাগরিকত্ব দেওয়ার বিষয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জাতীয় এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে। তবে কীসের ভিত্তিতে এই নাগরিকত্ব দেওয়া হবে সেই বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি। যদিও উত্তরপ্রদেশ সরকারের মুখপাত্র শ্রীকান্ত শর্মা এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, এই বিষয়ে সরকার ধীরে চলো নীতি নিচ্ছে। কোনও তাড়াহুড়ো নেই। সবে মাত্র নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রক্রিয়াটি শুরু হয়েছে। এই বিষয়ে আগামিদিনে আরও একাধিক পরিবর্তন আসবে বলে মনে করেন শ্রীকান্ত।

একই সঙ্গে যোগী সরকারের তরফে আরও জানানো হয়েছে, রাজ্যের সমস্ত জেলাশাসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে এই সংক্রান্ত সমীক্ষা চালাতে। আর সেই সমীক্ষাতে শরনার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিষয়টি উঠে আসবে। আর সেই রিপোর্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শ্রীকান্ত শর্মা।

প্রকাশিত সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্যে যাদের চিহ্নিত করা হয়েছে বেশিরভাগই উত্তরপ্রদেশের পিলিভিত জেলাতে। জানা যাচ্ছে, যোগী সরকার গোটা রাজ্যজুড়ে যে সমীক্ষা শুরু করেছেন তাতে বাংলাদেশ থেকে আসা ৩৭,০০০ উদবাস্তুর নাম উঠে এসেছে প্রাথমিকভাবে। ইতিমধ্যে তাঁদের নাম রাজ্য সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে কেন তাঁরা ভারতে চলে আসা এই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য যাচাই করেই তাঁদের নাম সরকারের টেবিলে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা