নয়াদিল্লি: ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে গেলে দিতে হবে ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রমাণ, এমনটাই সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের আওতায় যেসব উদ্বাস্তুরা পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে চাইছেন তাঁদের উদ্দেশে এমনই জানা গিয়েছে।

খসড়া তৈরিতে নিযুক্ত উচ্চপদস্থ অফিসার জানিয়েছেন, “ভারতে আমরা সকলেই ধর্ম সংক্রান্ত কোন না কোন প্রমাণ দিয়েছি এবং যারা ভারতীয় নাগরিকত্ব চাইছেন তাঁদের সকলকেই কিছু না কিছু তথ্য জমা দিতে হবে যে তারা ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগেই ভারতে এসেছেন”।

তিনি আরও জানান, ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য যেসব হিন্দু, শিখ, খ্রিষ্টান, বৌদ্ধ, জৈন এবং পার্সির ধর্মাবলম্বীদেরও প্রমাণ সহ তথ্য দিতে হবে যেখানে তারা ২০১৪ সালের ডিসেম্বরের ৩১ তারিখের মধ্যেই ভারতে এসেছেন তা প্রমাণ হয়।

অসমে উত্তেজনার পরিবেশ তৈরি থাকার জন্য এই প্রক্রিয়া ছোট আকারে করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

এই প্রসঙ্গে আরও একজন সরকারি আধিকারিক জানিয়েছেন, “নাগরিকত্ব আইনে অসমে যারা ভারতীয় নাগরিকত্বের জন্য আবেদন জানাতে চান তাঁদের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার আপাতত তিন মাসের সময় ধার্য করেছে”।

কেন্দ্র আলাদা করে অসমের উপর নজর দিয়েছে। নাগরিকত্ব আইনের সুষ্ঠু চালনার জন্য কিছু বিশ্যকে আলাদাভাবে দেখছে কেন্দ্রীয় সরকার।

অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বনন্দ সোনোওয়াল এবং তাঁর অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে অনুরোধ জানিয়েছে যে নির্দিষ্ট সময়ের জন্যই নাগরিকত্ব আইনের আওতায় আবেদন জানানোর আর্জি জানানো হয়েছে। পাশাপ্সহি এও জানানো হইয়েছে যে এই বিষয়ে অসম ভিত্তিক কিছু নিয়মকে যেন আওতাভুক্ত করা হয়।

অসমের অনেক মানুষ আছেন যারা কেন্দের সংশধিত নাগরিকত্ব আইনকে অসম অ্যাকর্ডের বিরুদ্ধে বলেও জানিয়েছেন।