নয়াদিল্লি : ভারত চিন সংঘাতের জেরে আগেই বড়সড় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছিল টিকটক সহ ৫৯টি ব্যান হওয়া চিনা অ্যাপ সংস্থা। এর ফলে ক্ষতির মুখে পড়তে হয় টিকটকের মূল সংস্থা বাইটডান্সকেও। এবার জানা গিয়েছে ভারতে তাদের সব বিভাগেই কর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ করে দিয়েছে বাইট ডান্স।

ভারতে কমপক্ষে দু হাজার কর্মী কাজ করেন এই সংস্থায়। তাঁদের অন্য চাকরি খুঁজে নিতে বলা হয়েছে। সেই অর্থে কোনও ছাঁটাই প্রক্রিয়া না শুরু হলেও, সংস্থাটি ভারতে তাদের ব্যবসায়িক কাজকর্ম যে গুটিয়ে নিতে চাইছে, তা বলাই বাহুল্য। কর্মীদের পারফরম্যান্স রিভিউ প্রক্রিয়া শুরু হতে চলেছে। এর জেরেই চাকরির স্থায়িত্ব নির্ধারিত হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে চিন থেকে নিজেদের সদর দফতর সরিয়ে নিতে চাইছে বাইট ডান্স। চিন ছাড়াও এদের বড় অফিস রয়েছে লস অ্যাঞ্জেলস, নিউ ইয়র্ক, ডাবলিন, সিঙ্গাপুর ও লন্ডনে। এছাড়াও মুম্বইতে নিজেদের শাখা খোলারও পরিকল্পনা বাইট ডান্সের।

তবে টিকটকের হাত ধরে নয়া ব্যবসা পেতে বসার সুযোগ খুঁজছিল চিনের বাইটডান্স কোম্পানি। সে আশায় আপাতত জল ঢেলে টিকটক সমেত ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। বাইটডান্সের ১০০ কোটির প্রজেক্ট এখন বিশ বাঁও জলে। ফলে বেশ চিন্তায় এই কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

গত বছর থেকেই ভারতে নয়া শাখা খোলার পরিকল্পনা চালাচ্ছে বাইটডান্স। প্রচুর বিনিয়োগও হয়ে গিয়েছে এই প্রজেক্টের ওপর বলে জানাচ্ছেন আধিকারিকরা। ভারতে টিকটকের তুমুল চাহিদা দেখার পরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। জানা গিয়েছে ভারতের বাজার থেকেই টিকটক মোট আয়ের ৩০ শতাংশ পেত। গোটা বিশ্বে টিকটকের ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০০ কোটি। তবে চিনা অ্যাপ বাতিলের সিদ্ধান্তে বাইটডান্সের মতো কোম্পানিগুলি সমস্যায় পড়েছে।

এর আগে, মাল্টিমিডিয়া শেয়ারিং অ্যাপ টিকটকও চিনের কালিমা মুছতে সদর দফতরের জন্য নতুন জায়গার খোঁজ করছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, টিকটকের তরফে ইতিমধ্যেই এ বিষয়ে ব্রিটেন সরকারের সঙ্গে কথা হয়েছে বলেই জানা যাচ্ছে। কারণ রাজধানী শহর লন্ডনে আস্তানা খুঁজছে টিকটক।

চিনের ওনারশিপ নিয়ে নানা বিতর্কে জড়িয়েছে টিকটক। সেখান থেকেই দূরে সরাতে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে। সূত্রের খবর, লণ্ডন ছাড়াও অন্যান্য জায়গাতেও খোঁজ চালাচ্ছে এই কোম্পানি। যদিও এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তবে অন্য কোন শহরের নামও প্রকাশ্যে আসেনি।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও