ব্যাংকক: ভয়াবহ দুর্ঘটনা। অন্তত ১৮ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। আহত হয়েছেন ৪০ জন। ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে সেই ভয়াবহ দুর্ঘটনার ছবি।

রবিবার এই দুর্ঘটনা ঘটেছে থাইল্যান্ডে। বাস ও ট্রেনের সংঘর্ষে ঘটনাটি ঘটেছে। ব্যাংকক থেকে ৩০ মাইল দূরে এই ঘটনার খবর এসেছে। ধর্মীয় অনুষ্ঠানের দিকে যাচ্ছিল বাসটি। ট্রেনের ধাক্কায় সেটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। আ্ত ৪০ জনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এর মধ্যে চার জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আটজনকে অবজারভেশনে রাখা হয়েছে।

সামান্য আঘাত লেগেছে এমন ৩০ জন যাত্রীকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। থাইল্যান্ডের সরকারের তরফে যে ফুটেজ প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, বাসটি রাস্তা থেকে রেল ট্র্যাকে ওঠার সময়েই সেটিকে ধাক্কা মারে ওই ট্রেন।

ক্রেন নিয়ে এসে ট্র্যাক থেকে বাস সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ।

বাসটিতে অন্তত ৬০ জন যাত্রী ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। একটি মন্দিরের দিকে যাচ্ছিল ওই বাস। একটি বিশেষ অনুষ্ঠানে যোগ দিতেই যাচ্ছিলেন যাত্রীরা। ইতিমধ্যেই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।

থাইল্যান্ডে এই ধরনের দুর্ঘটনা নতুন নয়। বিপজ্জনক রাস্তার তালিকায় উপরের দিকেই নাম রয়েছে থাইল্যান্ডের। ২০১৮-র পরোসংখ্যান অনুযায়ী, বিশ্বে সবথেকে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে থাইল্যান্ডে। তবে তা মেশির ভাগ ক্ষেতর্রেই মোটর সাইকেলের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।