file image

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: টাকার অভাবে দমদম পার্কে এক বাসচালকের আত্মহত্যার পরই রাস্তায় নামলেন বাস চালক ও কন্ডাক্টরদের একাংশ। বুধবার ২২১, ২০২, ২১৯, ৩সি/১, রাজচন্দ্রপুর করুণাময়ী, নাগেরবাজার হাওড়া মিনির বাসচালক কর্মচারীরা হাতে থালা নিয়ে রাস্তায় বসে বিক্ষোভ জানালেন।

মুখ্যমন্ত্রীর কাছে বাসের চালক, কন্ডাক্টরদের আবেদন, রাস্তায় বসা ছাড়া তাঁদের কোন উপায় নেই। ছেলেমেয়ের মুখে অন্ন তুলে দিতে পারছেন না। মালিকেরা তাদের তিন মাস দেখেছে। এখন মালিকদের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, দমদম পার্ক এলাকার বাসিন্দা বিশ্বজিৎ বড়াল নামে এক বাসচালক আত্মহত্যা করেছেন। তিনি ২২১ নং রুটের বাস চালাতেন বলে জানা গিয়েছে। তাঁর ঘনিষ্ঠদের দাবি, মানসিক টানাপোড়েন থেকে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিশ্বজিৎ। তাঁরা জানিয়েছেন, উপার্জন না থাকায় বাড়িভাড়া থেকে বিদ্যুতের বিল – সবই বকেয়া পড়েছিল বিশ্বজিতের। এমনকী খাবার কেনার মতো টাকাও ছিল না তাঁর।

এদিকে, পয়লা জুলাই থেকে রাস্তায় বেসরকারি বাস না নামলে কঠোর পদক্ষেপ করবে সরকার। বাস মালিকদের উদ্দেশ্যে মঙ্গলবার নবান্ন থেকে কড়া বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, প্রয়োজনে বেসরকারি বাস সরকার চালাবে।

তিনি জানিয়েছেন, বুধবার থেকে যদি রাস্তায় পর্যাপ্ত সংখ্যক বেসরকারি বাস না নামে, তাহলে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনানুগ ক্ষমতা প্রয়োগ করেই বাস মালিকদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করবে সরকার৷

মুখ্যমন্ত্রী এও জানিয়েছেন, বেসরকারি বাস নিয়ে নিজেরাই চালাবে সরকার৷ সেক্ষেত্রে নিয়ম মেনে বাস মালিকদের ভাড়া মিটিয়ে দেওয়া হবে৷ বেসরকারি বাসের চালক, কন্ডাক্টররা যদি সরকারের হয়ে কাজ করতে রাজি হয়, তাহলে সরকারই তাঁদের বেতন দেবে৷ তা না হলে বিকল্প ব্যবস্থা করা হবে৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ