স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: বিনা অনুমতিতে ২০১২ সাল থেকে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হচ্ছে এলএলবি৷ তাই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে প্রায় আট লক্ষ টাকা জরিমানা করল বার কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া৷

এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের বৈঠকে আলোচনা হয়৷ সেখানে পড়ুয়াদের কথা মাথায় রেখে জরিমানার টাকা মিটিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সেই মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের এক আধিকারিক অনুমোদনের জন্য ৩ লক্ষ এবং জরিমানার টাকা নিয়ে দিল্লি গিয়েছেন। বার কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার অফিসে টাকা জমা পড়েছে। কার গাফিলতিতে বিশ্ববিদ্যালয়কে জরিমানা দিতে হল তা নিয়ে জোর চর্চা চলছে। যার গাফিলতিতে বিশ্ববিদ্যালয়কে জরিমানা দিতে হল তার কেন শাস্তি হবে না তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।

আরও পড়ুন : মোদী ও অমিত শাহ মহাভারতের দুর্যোধন-দুঃশাসন: সীতারাম ইয়েচুরি

২০১২ সাল থেকে অনুমোদন ছাড়াই বিশ্ববিদ্যালয়ে এলএলবি পড়ানো হচ্ছে। কিছুদিন আগে বিষয়টি বার কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার নজরে আসে। বার কাউন্সিল থেকেও ই-মেল পাঠিয়ে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়। এরপরই কিছুদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক আধিকারিক ও আইন বিভাগের এক অধ্যাপক দিল্লিতে যান। বার কাউন্সিলের আধিকারিকদের সঙ্গে আলোচনা করেন তাঁরা। এরপর জরিমানা দিয়ে অনুমোদন পুনরনবীকরণ করার জন্য বলে বার কাউন্সিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্টস ফ্যাকাল্টির সেক্রেটারি কল্যাণ মুখোপাধ্যায় ফোনে বলেন, বার কাউন্সিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বকেয়া টাকা জমা পড়ে গিয়েছে। ফলে কারোর কোনও সমস্যা হবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিমাই চন্দ্র সাহা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা সমস্যায় পড়ুক তা আমরা কখনই চাই না। বার কাউন্সিলের অনুমোদন নিয়ে সাময়িক সমস্যা হয়েছিল। আলোচনা করে এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আইন বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের কোনও সমস্যা থাকবে না। দিল্লি থেকে রিপোর্ট মেলার পর এনিয়ে এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলে আলোচনা করব। কেন সময়ে কাজ হয়নি তা খতিয়ে দেখা হবে। তাতে যদি কারও দোষ পাওয়া যায় সেক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।