স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: রাজনৈতিক গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ঘটনায় উত্তাল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর৷হস্টেলে ঢুকে ব্যাপক মারধর করা হল তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সাংস্কৃতিক সম্পাদক রিন্টু লায়েককে৷ঘটনার জেরে তাঁকে গুরুতর আহত অবস্থায় বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ভরতি করা হয়েছে৷ অভিযোগ, শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাজী হস্টেল চত্বরে হঠাৎই তাঁকে আক্রমণ করে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রাক্তন নেতা শেখ সুখচাঁদ ও তার সঙ্গীরা৷ ব্যাপক মারধরের পর পালিয়ে যায় অভিযুক্তেরা৷ এরপর হস্টেলের অন্যান্য ছাত্ররা আহত অবস্থায় রিন্টুকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ভরতি করে৷

আহত ছাত্র এদিন আরও জানিয়েছে, অভিযুক্ত সুখচাঁদ বেশ কয়েকদিন ধরেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভরতির দাবিতে এবং উপাচার্যের কাছে সেই ব্যাপারে আবেদন জানানোর জন্য তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা-কর্মীদের উপর চাপ সৃষ্টি করছিলেন৷ তবে সেই আবেদনে আমল দেননি তৃণমূল ছাত্র পরিষদের কর্মীরা৷ফলে একপ্রকার ক্ষুব্ধ হয়েই তার উপর আক্রমণ চালানো হয়েছে বলে দাবি করেছে রিন্টু লায়েক৷ ঘটনার জেরে বর্ধমান থানায় অভিযুক্ত সহ আরও ১০ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷

অন্যদিকে অভিযুক্ত শেখ সুখচাঁদ সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েছে, এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয় সে৷ তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ রটানো হচ্ছে বলেও দাবি করেছে সে৷

উল্লেখ্য, সম্প্রতি এমবিএ ট্যুরিজমে ভরতির দাবিতে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাদ থেকে আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছিল ওই ছাত্র৷সে দাবি করেছিল লিস্টে তার নাম থাকা সত্যেও তাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ভরতি নিচ্ছে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷ এই ঘটনার কয়েকদিন পরে সুখচাঁদ বিশ্ববিদ্যালয়ে চত্বরে ভরতির দাবিতে আন্দোলন করলে গ্রেফতারও করা হয়েছিল অভিযুক্ত শেখ সুখচাঁদকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।