বর্ধমানঃ  ভালো কাজ পাইয়ে দেওয়ার টোপ দিয়ে কিশোরীকে দেহ ব্যবসায় নামানোর অভিযোগ। দুই মহিলাকে গ্রেফতার করেছে গলসি থানার পুলিশ। ধৃতদের নাম রোজিনা বেগম শেখ ওরফে লাভলি ও তুহিনা বেগম ওরফে খোদেজা বলে জানা গিয়েছে। গলসি থানার ভারিচা গ্রামে তাদের বাড়ি। বুধবার সকালে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিনই ধৃতদের বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। ঘটনাস্থল খুঁজে বের করা এবং বাকি জড়িতদের হদিশ পেতে ধৃতদের ৩ দিন পুলিশি হেফাজতে নেওয়ার জন্য আবেদন জানান তদন্তকারী অফিসার প্রণব নন্দী। সেই আবেদন মঞ্জুর করেন সিজেএম রতন কুমার গুপ্তা। কোভিড টেস্টের পর শুক্রবার কিশোরীর গোপন জবানবন্দি নথিভূক্ত করার জন্য পঞ্চম জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দিয়েছেন সিজেএম।

পুলিশ জানিয়েছে, গলসি থানার খেতুরা গ্রামে ওই কিশোরীর আদি বাড়ি। তবে, সে ভারিচা গ্রামে মামারবাড়িতে থাকে। প্রতিবেশি রোজিনার বাড়িতে কিশোরীর হামেশাই যাতায়াত ছিল।

গত বুধবার কিশোরীকে ভালো কাজ পাইয়ে দেওয়ার টোপ দেয় রোজিনা। তার প্রস্তাবে রাজি হলে অনেক টাকা পাওয়া যাবে বলে কিশোরীকে লোভ দেখানো হয়। কাজের জন্য তুহিনার সঙ্গে বাইরে যেতে হবে বলে কিশোরীকে জানানো হয়। কিশোরী সেই প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়। সেই মতো সেইদিন সন্ধ্যায় তাকে গাড়ি করে অনেকটা দূরে একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়।

যোগাযোগ রাখার জন্য কিশোরীকে একটি নতুন মোবাইল দেওয়া হয়। জায়গাটিতে কয়েকজন আগে থেকেই অপেক্ষায় ছিল। সেখানে পৌঁছানোর পর কিশোরীকে দেহ ব্যবসা করার জন্য বলা হয়। রাজি না হওয়ায় কিশোরীকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। ভয়ে কিশোরী প্রস্তাবে রাজি হয়।

এরপর কয়েকজন তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। পরেরদিন ভোর ৫টা নাগাদ তাকে মারুতি গাড়িতে করে মামার বাড়ির সামনে নামিয়ে দেওয়া হয়। ১ হাজার টাকা ও মোবাইল ফোনটি তাকে দেওয়া হয়। ঘটনার কথা কাউকে না বলার জন্য কিশোরীকে শাসানো হয়। লোকলজ্জায় ও ভয়ের কারণে কিশোরী কাউকে কিছু বলেনি।

মঙ্গলবার ঘটনার কথা জানিয়ে কিশোরী থানায় অভিযোগ দায়ের করে। তার ভিত্তিতে মহিলা পাচার, জোর করে দেহ ব্যবসায় নামানো ও গণ ধর্ষণের ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ। কিশোরীকে দেওয়া মোবাইলটি পুলিশ বাজেয়াপ্ত করেছে।

গলসি থানার এক অফিসার বলেন, ধৃতদের হেফাজতে নিয়ে কিশোরীকে কারা ধর্ষণ করেছে তাদের পরিচয় জানার চেষ্টা হবে। কোন জায়গায় কিশোরীকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাও জানার চেষ্টা করা হবে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।