বর্ধমান: চোখ রাঙাচ্ছে করোনা। শুধু বর্ধমান শহরেই প্রায় সাড়ে পাঁচশো বাসিন্দা নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। জেলাজুড়ে ছবিটা আরও ভয়ঙ্কর। গোটা বর্ধমানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ হাজার। সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে মুখে মাস্ক পরে বেরোতে আবেদন করা হচ্ছে। তা সত্ত্বেও শহরবাসীর একাংশের হেলদোল নেই।

গোটা রাজ্যেই ছড়াচ্ছে সংক্রমণ। প্রতিদিন ৩ হাজার বা তারও বেশি সংখ্যায় মানুষ করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন রাজ্যজুড়ে। রাজ্যের অন্য জেলাগুলির পাশাপাশি করোনাকর সংক্রমণ উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি করেছে বর্ধমান জেলায়। এই জেলায় ইতিমধ্যেই প্রায় ২ হাজার মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

বর্ধমান শহরে করোনার সংক্রমণ নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। বর্ধমান পুরসভার প্রায় সব ওয়ার্ডে থাবা বসিয়েছে নোভেল করোনাভাইরাস। বর্ধমান শহরে প্রায় সাড়ে পাঁচশো জন ইতিমধ্যেই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই করোনা আক্রান্ত হয়ে বর্ধমান শহরের ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে একাধিক সতর্কতামূলক পদক্ষেপ করছে প্রশাসন।

তাতেও সংক্রমণে বেড়ি পরাতে তাঁদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। অভিযোগ, করোনা বিপজ্জনক রূপ নিলেও শহরবাসীর একাংশের হেলদোল নেই। অনেকেই মুখে মাস্ক ছাড়া দিব্যি বাইরে ঘুরছেন। শহরবাসীর একাংশের হেলদোলহীন ভূমিকার জেরেই শহরে করোনা চোখ রাঙাচ্ছে বলে দাবি প্রশাসনের।

চলতি সপ্তাহে লকডাউনের প্রথম দিনেও বর্ধমান শহরের বিভিন্ন এলাকায় মুখে মাস্ক ছাড়াই ঘোরাফেরা করতে দেখা গিয়েছে বেশ কয়েকজনকে। লকডাউন চলায় এদিন শহরের বিভিন্ন মোড়ে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

জরুরি কাজ ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরোলেই পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়তে হয়েছে বাসিন্দাদের। উত্তর সন্তোষজনক না হলে পত্রপাঠ বাড়িতে ফেরত পাঠানো হয়েছে বেশ কয়েকজনকে। অনেকে আবার মুখ মাস্ক ছাড়াই বাইরে বেরিয়েছিলেন। তাঁদেরও ফেরত পাঠিয়েছে পুলিশ।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I