বিস্ফোরণে উড়ে গেল আইসিডিএস স্কুলের প্রাচীর
বিস্ফোরণে উড়ে গেল আইসিডিএস স্কুলের প্রাচীর

মেমারিঃ  গলসি থানার আট পাড়ার বিস্ফোরণ স্থল পরিদর্শন করল সিআইডি। রবিবার সকালে সিআইডির বর্ধমান শাখার ইনসপেক্টর সঞ্জীব পালের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের টিম আট পাড়ায় বিস্ফোরণ হওয়া শিশু শিক্ষা কেন্দ্রে যান। তাঁরা দীর্ঘক্ষণ বিস্ফোরণ স্থল ঘুরে দেখেন। ঘটনার বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করেন তাঁরা।

গলসি থানার অফিসারদের সঙ্গেও ঘটনার বিষয়ে খোঁজ খবর নেন সিআইডির গোয়েন্দারা। একসঙ্গে অনেকগুলি বোমা ফাটায় বিস্ফোরণের তীব্রতা এত বেশি হয়েছে বলে সিআইডির অনুমান। তবে, বোমা কি উদ্দেশ্যে মজুত করা হয়েছিল এবং কারা এতে জড়িত সে বিষয়ে নিজেদের মতো করে তথ্য সংগ্রহ করছেন গোয়েন্দারা।

এদিনই দুর্গাপুর থেকে সিআইডির বোম ডিসপোজাল স্কোয়াডের একটি টিম ঘটনাস্থলে আসে। বিস্ফোরণে উড়ে যাওয়া শিশু শিক্ষা কেন্দ্রের শৌচাগারের ধ্বংসস্তূপ ও আশপাশ এলাকায় তল্লাশি চালান বোমা বিশেষজ্ঞরা। তবে, দীর্ঘক্ষণ তল্লাশির পরও ঘটনাস্থল বা তার আশপাশ থেকে কোনও তাজা বোমা উদ্ধার হয়নি।

বোম স্কোয়াডের অফিসাররা ঘটনাস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করেন। তবে, তদন্তের বিষয়ে মুখ খুলতে চাননি বোমা বিশেষজ্ঞরা।সিআইডির অফিসাররাও এই বিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন। শনিবার বিকালে আচমকা প্রচণ্ড বিস্ফোরণে আট পাড়া, হাজরা পাড়া শিশু শিক্ষা কেন্দ্রের একটি পরিত্যক্ত শৌচাগারে বোমা বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণের তীব্রতায় শৌচাগারের দেওয়াল ধসে পড়ে। উড়ে যায় টিনের চালা।

বিস্ফোরণে আশপাশের এলাকা কেঁপে ওঠে। আতঙ্ক ছড়ায় বাসিন্দাদের মধ্যে। খবর পেয়ে পুলিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিস্ফোরণ স্থল ঘিরে ফেলে। শৌচাগারে মজুত করে রাখা অনেকগুলি বোমা একসঙ্গে ফাটার কারণে এই ঘটনা বলে প্রাথমিকভাবে পুলিসের অনুমান। তবে, কে বা কারা বোমা মজুত করেছিল সে ব্যাপারে কিছু জানাতে পারেনি পুলিশ।

গলসি থানার এক অফিসার বলেন, সিআইডির বোম ডিসপোজাল স্কোয়াড ঘটনাস্থলে এসেছিল। ঘটনাস্থল থেকে তাজা বোমা মেলেনি। একসঙ্গে অনেকগুলি বোমা ফাটার কারণে বিস্ফোরণের তীব্রতা বেশি ছিল। কি কারণে এবং কারা বোমা মজুত করেছিল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।