মুম্বই: লাসিথ মালিঙ্গার থেকে তিনি ক্রিকেট সংক্রান্ত অনেক কিছুর পাঠ শিখেছেন, কিন্তু ইয়র্কার রপ্ত করতে তিনি কখনোই শ্রীলঙ্কান তারকা পেসারের দ্বারস্থ হননি। সাফ জানালেন এই মুহূর্তে ওয়ান-ডে ফর্ম্যাটে বিশ্বের পয়লা নম্বর বোলার জসপ্রীত বুমরাহ।

ক্রিকেট অনুরাগীদের মধ্যে একটা বদ্ধমূল ধারণা রয়েছে আইপিএলে মুম্বই ফ্র্যাঞ্চাইজিতে মালিঙ্গার সঙ্গে বহু বছর একইসঙ্গে খেলার ফলে ইয়র্কার আরও ক্ষুরধার হয়েছে বুমরাহর। কিন্তু অনুরাগীদের সেই ধারণা একেবারেই ভুল, হিন্দুস্থান টাইমসকে জানালেন বুমরাহ। তরুণ ভারতীয় পেসারের কথায়, ‘অনেকের বিশ্বাস যে মালিঙ্গা আমাকে ইয়র্কার শিখিয়েছে, কিন্তু সেটা সত্যি নয়।’ ভারতের পেস বিভাগের সেরা অস্ত্রের কথায়, মাঠে মালিঙ্গা আমায় হাতে ধরে কিছুই শেখাননি। আমি তাঁর থেকে আমি অনেক মানসিক পাঠ নিয়েছি। বাইশ গজে কীভাবে রাগ সংবরন করতে হয় তা জেনেছি। কীভাবে ব্যাটসম্যানের জন্য পরিকল্পনা প্রস্তুত করতে সে সম্পর্কে পাঠ নিয়েছি।’

কিন্তু তাঁর নিখুঁত ইয়র্কারের রহস্য কী? এই প্রসঙ্গে বুমরাহ তাঁর ছোটবেলার কিছু স্মৃতি রোমন্থন করেছেন। ওয়ান-ডে’র পয়লা নম্বর বোলারের কথায়, ছোটবেলায় বাড়িতে তিনি যখন সাধারণ ডেলিভারি প্র্যাকটিস করতেন, তখন বলের আওয়াজে রেগে গিয়ে তাঁর মা খেলা বন্ধ করে দিতেন। তখন বুমরাহ আবিষ্কার করেন দেওয়াল ও ফ্লোরের সংযোগস্থলে বল ফেললে আওয়াজ কম হয়। মায়ের বকাবকি থেকে রক্ষা পেতে বুমরাহর সেই প্র্যাকটিসই আজ বিশ্বের তাবড় তাবড় ব্যাটসম্যানদের দুঃস্বপ্নের কারণ।

আরও পড়ুন: দাবানলে ক্ষতিগ্রস্তদের ছক্কা পিছু আড়াইশো ডলার দেবেন লিনরা

এছাড়াও টেলিভিশনের পর্দায় দেখে বোলিংয়ের বহু কৌশল তিনি রপ্ত করেছেন। পাশাপাশি জাতীয় দলের বোলিং কোচ ভরত অরুণ, সতীর্থ ইশান্ত শর্মা, মহম্মদ শামি, ভুবনেশ্বর কুমার এছাড়া মুম্বই ইন্ডিয়ান্স শিবিরে শেন বন্ড, লাসিথ মালিঙ্গা ও মিচেল জনসনকেও বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাঁর শিক্ষক হিসেবে মান্যতা দিয়েছেন বুমরাহ।

আরও পড়ুন: সৌরভের হাত ধরেই ভারত-পাক সিরিজ শুরুর স্বপ্ন দেখছে পাকিস্তান

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স বোলারের কথায়, ‘মূলত টিভি দেখেই আমার ক্রিকেটের সমস্তটা রপ্ত করা। এখনও আমি বিভিন্ন ভিডিও এবং ফিডব্যাক দেখে নিজেকে প্রস্তুত করি। আমি নিজেই নিজের পর্যালোচনা করি। কারণ আমি জানি মাঠে আমি একাই। কেউ আমাকে সেখানে সাহায্য করতে আসবে না। তাই আমার মনে হয় নিজেই নিজেকে শুধরে নেওয়া উচিৎ।’