কলকাতা: এই শহরে অবস্থিত  সরকারি প্রেক্ষাগৃহ ও চলচ্চিত্র উৎকর্ষ কেন্দ্র নন্দন-এর সঙ্গে রাজ্যর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য নিবিড় সম্পর্কের কথা অনেকেই জানেন ৷বাম আমলে এটি  গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তাঁর একটা ভূমিকাও ছিল, যারজন্য বলা হত নন্দন হল বুদ্ধবাবুর ‘ব্রেনচাইল্ড’৷ শুধু তাই নয়  পরবর্তীকালে মন্ত্রী থাকাকালীন এই জায়গাটিতে তাঁকে নিয়মিত আসতে দেখাও যেত৷৷ কিন্তু এটাও ঘটনা যে বাম আমলে নন্দনের উদ্বোধনের দিন অনুপস্থিত ছিলেন বুদ্ধদেব ভট্টচার্য৷
১৯৭৭ সালে বামফ্রন্ট ক্ষমতায় এলে জ্যোতি বসুর মুখ্যমন্ত্রিত্বে ওই মন্ত্রিসভার তথ্যও সংস্কৃতি মন্ত্রী হন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য৷ তারপর ১৯৮০ সালে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের উপস্থিতি এই ‘নন্দনে’র ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হয়েছিল৷কিন্তু  ১৯৮২ সালে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য কাশীপুর বিধানসভা কেন্দ্র(ওই কেন্দ্র  থেকেই ১৯৭৭ সালে জিতেছিলেন) থেকে দাঁড়ালেও ভোটে জিততে পারেননি৷ফলে মন্ত্রীত্ব হারান৷ এরপর ১৯৮৭ সালে কেন্দ্র বদল করে যাবদপুর থেকে দাঁড়িয়ে জেতেন এবং ফের মন্ত্রী হন৷কিন্তু এই মধ্যবর্তী সময়েই নন্দনের উদ্বোধন হয়েছিল৷১৯৮৫ সালের ২ সেপ্টেম্বর তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর উপস্থিতিতে  নন্দনের দ্বারোদ্ঘাটন করেছিলেন বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক সত্যজিৎ রায়। নন্দনের প্রতীকচিহ্নটিও তিনিই এঁকে দিয়েছিলেন। ওইদিন সেখানে হাজির ছিলেন না বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য৷ শুধু তাই নয়  ১৯৮৭ সালে ফের রাজ্যের তথ্য সংস্কৃতি মন্ত্রী হওয়ার পর এই নন্দনে ফের পা রেখেছিলেন বুদ্ধবাবু৷ তার আগে সেখানে আর যাননি তিনি৷