কলকাতা: প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে৷ সোমবার এই কথা জানিয়েছেন সিপিএমের পলিটব্যুরোর সদস্য মহম্মদ সেলিম৷ শুক্রবার রাতে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে শ্বাসকষ্ট নিয়ে বুদ্ধদেববাবু ভর্তি হন৷ তবে শুরু থেকেই হাসপাতালে আসতে চাইছিলেন না তিনি৷ হাসপাতালের শয্যায় শুয়ে তিনি পার্টির নেতাদের বারবার তাঁর পাম এভিনিউয়ের ফ্ল্যাটে ফিরে যাওয়ার কথাই বলেছেন৷ সোমবার সেই কথাই জানিয়ে দিয়েছেন সেলিম৷ তিনি বলেন, ‘‘প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভালো আছেন৷ তিনি বাড়ি ফিরতে চান৷ তাঁকে বাড়ি ফিরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করা করা হয়েছে৷ হাসপাতালের বিল পার্টি মিটিয়ে দিচ্ছে৷’’

সাংবাদিকরা সেলিমকে প্রশ্ন করেন, রাজ্য সরকার কী প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর চিকিৎসায় কোনও আর্থিক সাহায্য করেছে? সেলিম বলেন, ‘‘বুদ্ধদেববাবুর চিকিৎসার দায়িত্ব পার্টির৷ রাজ্য সরকার এই বিষয়ে কিছু জিজ্ঞাসা করেনি৷ জ্যোতি বসুর চিকিৎসার দায়িত্বও পার্টি নিয়েছিল৷’’ মনে রাখা প্রয়োজন, শুক্রবার রাতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাসপাতালে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে দেখতে যান৷ এরপরই বিভিন্ন রাজনৈতিক কংগ্রেস-বিজেপির নেতারা বুদ্ধদেববাবুকে দেখতে হাসপাতালে ভিড় জমান৷

আগের থেকে তার শারীরিক অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের৷ সোমবার সকালেও খাবার খেয়েছেন তিনি৷ তার শারীরিক অবস্থার দিকে নজর রাখছেন ৭ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড। প্রতিদিনই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে৷ সোমবার সকালে হাসপাতালের তরফে যে মেডিকেল বুলেটিন দেওয়া হয়েছে তাতে বলা হয়েছে, ভালো ঘুমিয়েছে বুদ্ধদেববাবু৷ মুখে বাইলেভেল পজিটিভ এয়ারওয়ে প্রেসার বা বাইপ্যাপ লাগানো রয়েছে৷ তাঁর রক্তচাপ এবং হৃদস্পন্দনও স্বাভাবিক৷ তবে অক্সিজেন দিতে হচ্ছে৷

গত তিনদিন ধরে দক্ষিন কলকাতার এই বেসরকারী হাসপাতালের আইসিসিউ-এর ৫১৬ নম্বর বেডে শুয়ে ছিলেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য৷ অ্যাম্বুলেন্স করে তাঁকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ যাঁর তত্ত্বাবধানে তিনি ভর্তি হয়েছে সেই ডা. কৌশিক চক্রবর্তী এবং পারিবারিক চিকিৎসক সোমনাথ মাইতি৷ বেসরকারি হাসপাতালের ডেপুটি সুপার ডা. সপ্তর্ষি বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভালো আসেন৷ তাঁর চিকিৎসা এবার বাড়িতেই হবে৷ হাসপাতালের পক্ষ থেকে যাবতীয় চিকিৎসা পরিষেবা বাড়িতেই দেওয়া হবে৷

চিকিৎসকরা বলেছেন, তাঁর ক্রনিক সিওপিডি-এর সমস্যা রয়েছে৷ এই সমস্যা তার আজকের নয়৷ বহুদিনের৷ একসময় অতিরিক্ত ধুমপান তাঁকে আরও অসুস্থ করেছে৷ অসুস্থ বুদ্ধদেববাবু অবশ্য তাঁর বাড়িতে বই পড়েই সময় কাটান৷ তাঁকে মাধেমধ্যে দেখতে চান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷