থিম্পু: মরসুমের প্রথম তুষারপাত হয়ে গিয়েছে৷ বজ্র ড্রাগনের দেশ৷ পেঁজা তুলোর মতো তুষার চাদরে মুড়ে আরও অপরূপা হয়ে গিয়েছে ভুটান৷ রাজধানী শহর থিম্পুর রাজপথ থেকে গলিপথ সর্বত্র ছড়িয়েছে বরফ৷ তাপমাত্রা আরও নামছে৷ হিমাঙ্কের নিচে পৌঁছে যাওয়া হাড় হিম ঠান্ডায় কুঁকড়ে গেলেও তুষারপাতের আনন্দ নিতে কোনও খামতি নেই ভুটানিদের৷

থিম্পুর কাছেই বিখ্যাত বুদ্ধ মূর্তি বরফে ঢাকতে শুরু করল৷ পিতলের তৈরি এই সুবিশাল মূর্তির গায়ে ঝরে পড়ছে শীতের শুভেচ্ছা-তুষার৷ এরকম চলতে থাকলে অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই পুরো ধ্যানস্থ গৌতম বুদ্ধ পুরোপুরি বরফে ঢেকে যাবেন৷ চলতি বছর রেকর্ড পরিমাণ তুষারপাত হওয়ার সম্ভাবনা জানিয়েছে ভুটানের আবহাওয়া বিভাগ৷

ছবি সৌজন্যে- ইউনিসেফ

বড়দিনের আগে এমন তুষারপাতের জেরে আগেই দু দিনের জাতীয় ছুটির কথা ঘোষণা করেছে ভুটান সরকার৷ সেই ছুটি কাটিয়ে এবার ফের তুষারে ঢেকে থাকা রাজপথ দিয়েই কর্মমুখী ভুটানি অফিস যাত্রীদের ভিড় বাড়বে৷ সামনেই বড়দিন৷ এই উপলক্ষে তুষার চাদরে মোড়া থিম্পু আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে শুরু করল৷ ভারত সহ বিভিন্ন দেশ থেকে আসছেন পর্যটকরা৷

পড়ুন: মাঝারি ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল দেশ

বিভিন্ন ভুটানি সংবাদপত্রের খবর, ভারতের সঙ্গে আন্তর্জাতিক সীমান্ত লাগোয়া ফুন্টশোলিংয়েও কনকনে হাওয়া বইছে৷ আমো চু (তোর্ষা নদী) থেকে উঠে আসা হাওয়া হু হু করে ছুটে যাচ্ছে সীমান্ত শহরের উপর দিয়ে৷ আর নিচে থাকা ভারতীয় বাজার জয়গাঁ-তেও প্রবল ঠান্ডা৷ জনজীবন জবুথবু সেখানে৷

শুধু থিম্পু নয় ভুটানের অন্যান্য শহর যেমন পারো, পুনাখার বিভিন্ন অংশে বরফে ঢেকে যাচ্ছে৷ এই ধরণের তুষারপাত চাষের জন্য ভালো৷ এমনই জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা৷ তুষারপাত আমাদের জন্য আশীর্বাদ বলছেন তাঁরা৷ সুখী-সমৃদ্ধশালী দেশ ও কার্বনমুক্ত রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বে প্রথম সারিতে রয়েছে ভুটান৷ বনাঞ্চল ও অক্সিজেন উৎপাদনেও এই দেশের নজরকাড়া সাফল্য৷ ফলে শীত মরশুমে তুষারপাতের আলাদাই আমেজ এখানে৷