নয়াদিল্লি: বিজেপি এমপি অনন্ত কুমার হেগড়ে বিতর্কে জড়ালেন বিএসএনএল কর্মীদের বিশ্বাসঘাতক আখ্যা দেওয়ায়। বিজেপি নেতা জানিয়েছেন, বিএসএনএলে যারা কাজ করে না তাঁরা বিশ্বাসঘাতক। এই সংস্থার ৮৮,০০০ কর্মীকে তাড়ানো হবে বিএসএনএলকে বেসরকারিকরণ করার মাধ্যমে, এমনটাই হুঁশিয়ারি বিজেপি নেতার।

১০ অগস্ট কর্নাটকের কুমতা অঞ্চলে এক অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়ে ‌ হেগড়ে এমন মন্তব্য করেন। সরকার এই বছরের আগের দিকে অবশ্য জানিয়েছিল, তারা সরকারের মালিকানাধীন দুই টেলিফোন সংস্থা বিএসএনএল এবং এমটিএনএল বিক্রি করবে না অথবা বিলগ্নীকরণ করা হবে না।

বদলে পুনরুজ্জীবনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে এই দুই সংস্থার । এদিকে এই দুটি সংস্থারই আর্থিক সংকটের জন্য কর্মীরা সময়মতো মাইনে পাচ্ছেন না। তা পেতে দেরি হওয়ায় কর্মীদের প্রতিবাদ ধর্মঘট ইত্যাদি করতে দেখা যায়। বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য এই বিজেপি নেতা নতুন নন। বারবারই তিনি বিতর্কিত মন্তব্যে জড়িয়ে পড়েছেন।

এই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এই প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মহাত্মা গান্ধী সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করেছিলেন। সেই সময় তিনি গান্ধীজীর নেতৃত্বে স্বাধীনতা আন্দোলনকে ‘নাটক’ বলে আখ্যা দিয়েছিলেন। এমনকি তিনি গান্ধীজী সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছিলেন, লোকে কেন এই মানুষটিকে মহাত্মা বলে?

তাছাড়া হেগড়ে গত এপ্রিল মাসে খবরের বিষয় হয়ে গিয়েছিলেন যখন তার টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেওয়া হয়েছিল। সেই সময় ভারত বিরোধী একটি মাইক্রো ব্লগিং সাইটের পক্ষ নিয়েছিলেন এবং রীতিমত পক্ষপাতদুষ্ট উদ্দেশ্য তার মধ্যে দেখা গিয়েছিল। এই সাংসদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে লিখিতভাবে জানিয়ে ছিলেন, তিনি কোন একটি কর্পোরেটের ডিজিটাল উপনিবেশ গড়ার বিরোধী।

যদিও গত কয়েক মাস আগেই বিএসএনএলকে প্রাইভেটাইজেশন করার কোনও পরিকল্পনা নেই। উলটে বিএসএনএলকে ঢেলে সাজানোর কথা বলা হয়। ৪জি আপগ্রেডেশনে বিএসএনএলকে নিয়ে যাওয়ার ভাবনা কেন্দ্রীয় সরকারের। কিন্তু ভারত-চিন -সংঘাতের আঁচ এসে পড়েছে বিএসএনএলের উপর। চিনের কোনও দ্রব্য কিংবা কোনও সংস্থাকে দিয়ে ৪জি’তে আপগ্রেডেশন করা যাবে না। যার ফলে এই কাজ থমকে রয়েছে বলে খবর। যদিও খুব শীঘ্রই টেন্ডার ডাকা হবে। ভারতীয় কোনও সংস্থাকে দিয়ে এই কাজ করানো হবে বলে খবর।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও