ফাইল ছবি। গুগল থেকে পাওয়া।

নয়াদিল্লি: ৩০ বছরের চাকরিজীবন হলে তার মধ্যে মাত্র পাঁচ বছর পরিবারের সঙ্গে কাটাতে পারে বিএসএফ জওয়ানরা। তাই জওয়ানদের একাকীত্বের কথা মাথায় রেখে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে বিএসএফ। দেশ জুড়ে তৈরি করা হলে ১৯০টি গেস্ট হাউস। নতুন বিয়ে হলে স্ত্রী’দের নিয়ে সেখানেই থাকতে পারবেন তাঁরা।

জওয়ানদের জন্য ১৯০টি গেস্ট হাউসে তৈরি হবে মোট ২৮০০ টি ঘর। বিএসএফ ডিজি কেকে শর্মা জানিয়েছেন, জওয়ানদের দাব মেনে ১৫টি স্টুডিও অ্যাপার্টমেন্টের মত তৈরি করা হচ্ছে। ১৮৬টি ব্যাটেলিয়ন লোকেশনে তৈরি করা হবে সেগুলি।

বিএসএফ ডিজি বলেন, ‘চাকরিজীবনের বেশিরভাগ সময়ই জওয়ানদের একা কাটাতে হয়। কঠিন জীবন হয় তাঁদের। বছরে মাত্র আড়াই মাস তাঁরা বাড়িতে কাটানোর সুযোগ পান। তাই জওয়ানরা যাতে আরও বেশি সময় পরিবারের সঙ্গে থাকার সুযোগ পান, সেজন্যই ১৯২টি জায়গায় গেস্ট হাউস তৈরি করা হচ্ছে।’

নতুন বিয়ে করলে এই সুযোগে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে, কারণ সেক্ষেত্রে পরিবারের সঙ্গে না থাকতে পারলে তার প্রভাব আরও বেশী করে পড়ে। এমনটাই জানিয়েছেন ডিজি। বর্তমানে কেবলমাত্র অফিসার ও সাব অফিসারদের জন্য গেস্ট হাউস রয়েছে। এবার থেকে জওয়ান অর্থাৎ কনস্টেবল বা হেড কনস্টেবল র‍্যাংকে থাকলেও এই সুবিধা পাওয়া যাবে।

প্রত্যেক ব্যাটেলিয়নের জন্য তৈরি করা হচ্ছে ১৫টি স্টুডিও অ্যাপার্টমেন্ট। প্রত্যেকটিতে থাকবে বাথরুম, বেডরুম, কিচেন, টিভি। কিছুসময়ের জন্য স্ত্রী’র সঙ্গে সেখানে থাকতে পারবেন জওয়ানরা। এর ফলে জওয়ানদের চাপ অনেকটা লঘু হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। ১৫টি রুমের গেস্ট হাউসে একটি কমন ড্রয়িং রুম থাকবে। তবে শুধুমাত্র নতুন বিয়ের ক্ষেত্রেই নয়, কেউ নিজের সন্তানকেও ছুটিতে এনে রাখতে পারবেন সেই গেস্ট হাউসে।

পাকিস্তান ও বাংলাদেশের সীমান্তে পাহারা দেন বিএসএফ জওয়ানরা। আড়াই লক্ষ জওয়ান রয়েছে এই বাহিনীতে।