কৃষ্ণনগর: সীমান্ত সুরক্ষিত নয় এবং তা যে পাচারকারীদের মুক্তাঞ্চল হয়ে উঠেছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে অনে আগেই। রবিবার সেই অভিযোগ যেন আরও একবার পূর্ণতা পেল।

ভারত-বাংলাদশ সীমান্ত থেকে উদ্ধার করা হল বিপুল পরিমাণ বিপুল পরমাণ নগদ টাকা এবং সোনা। উল্লেখযোগ্য বিষ্য হচ্ছে উদ্ধার হওয়া নগদ ভারতীয় নয়। বাংলাদেশি টাকাও নয় সেগুলি। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে উদ্ধার হয়েছে মার্কিন ডলার।

আরও পড়ুন- ‘আবার পালটি খাচ্ছে’, চোখ-কান খোলা রাখতে বললেন শিলাজিৎ

এদিন সকালের দিকে পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলার বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকায় টহলদারির সময়ে ওই টাকা এবং সনা উদ্ধার করা হয়। সীমান্তের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা বিএসএফ জওয়ানেরা তা উদ্ধার করে কৃষ্ণনগরের ক্যাম্পে নিয়ে আসেন। এই ঘটনায় এক পাচারকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোনা এবং ডলারের পাশাপাশি একটি মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন- বিজেপির বর্তমান অবস্থা দেখলে আত্মহত্যা করতেন শ্যামাপ্রসাদ: শোভনদেব

বিএসএফ কৃষ্ণনগর সেক্টরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে রবিবার বেশ কয়েকটি সোনার বিস্কুট ও সোনার পাত সহ এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। একই সঙ্গে সেই ব্যক্তির কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ মার্কিন ডলার উদ্ধার করা হয়েছে। আনুমানিক হিসেবে উদ্ধার হওয়া ডলারের মট পরিমাণ প্রায় ৩০ হাজার। পাশাপাশি উদ্ধার সোনার বাজারদর ৬১ লক্ষ ৯৯ হাজার ১৩৭ টাকা।

আরও পড়ুন- কৃত্তিকার স্মৃতিতে শহরে মৌন মিছিল, হাঁটলেন জিডি বিড়লার অভিভাবকরা

এই সবই বাংলাদেশ থেকে পাচার করে ভারতে নিয়ে আসা হচ্ছিল বলে জানিয়েছে বিএসএফ। ধৃত ব্যক্তি ভারতের নাগরিক। বিএসএফ-এর পক্ষ থেকে আরও জানান হয়েছে যে এই পাচারের কারবারের সঙ্গে এক বাংলাদেশি নাগরিকও জড়িত ছিল। সেও ধৃত ভারতীয়ের সঙ্গে ডলার ও সোনা নিয়ে ভারতে আসছিল। বিএসএফ জওয়ানদের তৎপরতায় ধরা পরে যায় ভারতীয় ব্যক্তি। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পালিয়ে যায় বাংলাদেশি পাচারকারি।

আরও পড়ুন- আবেগেও টেক্কা রাহুলকে, আমেঠিতে বাড়ি বানাচ্ছেন সাংসদ স্মৃতি

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।