ফাইল ছবি

জম্মু : জম্মু সীমান্তে মোতায়েন বিএসএফ ট্রুপারকে গ্রেফতার করল পুলিশ। পঞ্জাব থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ সীমান্ত দিয়ে মাদক পাচার চক্রের সঙ্গে সে সক্রিয় ভাবে যুক্ত ছিল। রবিবার বিএসএফ আধিকারিকরা জানান, ওই ট্রুপারকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পঞ্জাবের গুরুদাসপুরের বাসিন্দা ওই ট্রুপার পাকিস্তান সীমান্তে জম্মুর সাম্বা সেক্টরে কর্মরত ছিল। ধৃতের কাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে অস্ত্র ও অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার হয়েছে। একটি পিস্তল, ৯ এমএম ক্যালিবারের বন্দুকের ৮০টি বুলেট, ১২ বোর রাইফেলের দুই রাউন্ড গুলি, দুটি ম্যাগাজিন ও তিনটি ফোন উদ্ধার করা গিয়েছে তার কাছ থেকে।

পাকিস্তান সীমান্তের ৩,৩০০ কিমি জুড়ে জম্মু, পঞ্জাব, রাজস্থান ও গুজরাতে মোতায়েন রয়েছে বিএসএফ। এদিকে, লাদাখে চিনের সঙ্গে লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলে সংঘর্ষের মাঝেই পাকিস্তানের সঙ্গে আন্তর্জাতিক সীমানায় নজরদারি বাড়িয়েছে সীমান্ত রক্ষা বাহিনী। পাকিস্তানকে রুখতে বদ্ধপরিকর বর্ডার সিকিউরিটি ফোরস।

জুনের ২০ তারিখ জম্মুর কাঠুয়া জেলায় আন্তর্জাতিক সীমানার কাছে অস্ত্রভর্তি পাক ড্রোনকে আটকে দিয়েছে বিএসএফ। সেখানে আমেরিকান রাইফেল, সাতটি গ্রেনেড এবং দুটি ম্যাগাজিন রাইফেল পাওয়া গিয়েছে। সেইসব অস্ত্র জঙ্গিদের কাজে ব্যবহার করার জন্য পাকিস্তান হেক্সাকপ্টার করে নিয়ে যাচ্ছিল বলেই জানা গিয়েছে বিএসএফ সূত্রে।

সেদিনের ঘটনার পর থেকেই পাকিস্তানের জঙ্গিমূলক কার্যকলাপ আটকাতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে সীমান্ত রক্ষা বাহিনী। সীমান্ত লাগোয়া এলাকায় বাড়ানো হয়েছে পেট্রলিং। অনুপ্রবেশ আটকাতে তৎপর বিএসএফের তরফে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যেই বিএসএফের জম্মু ফ্রন্টিয়ারের আইজি এনএস জামওয়াল এবং ডিজিপি দিলবাগ সিং সাম্বা জেলার সীমান্ত লাগোয়া অঞ্চল ঘুরে দেখেছেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ এবং বিএসএফের আরও উচ্চপদস্থ কর্তারা।

জম্মু ও কাশ্মীরের ডিজিপি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, উপত্যকা অঞ্চলের শান্তি বিঘ্নিত করতে জঙ্গিদের সেখানে ঢুকিয়ে দিয়ে চাইছে পাকিস্তান। সীমান্তের ওপারে লঞ্চপ্যাড সক্রিয় করে রাখা হয়েছে। তবে আমদের সুরক্ষা বাহিনী বহু অনুপ্রবেশের ঘটনা আটকে দিয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ