ঢাকাঃ  ভারত এবং বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর বিরুদ্ধে গুলির লড়াই। দুপক্ষের গোলাগুলির মধ্যে শহিদ হতে হয় বিএসএফ এক জওয়ানকে। আর এই ঘটনায় ফুঁসছে দেশ। তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে বিএসএফের তরফেও। যদিও এই ঘটনাকে ভুল বোঝাবুঝি বলে দাবি করলেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি জানিয়েছেন, এই ঘটনা একেবারেই অনাকাঙ্ক্ষিত। তবে ভুল বোঝাবুঝির কারণেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

সাংবাদিক সম্মেলনে আসাদুজ্জামান খান কামাল আরও জানিয়েছেন, বিজিবির তথ্যমতে ফ্ল্যাগ মিটিংয়ের অপেক্ষা না করে বিএসএফ ধৃত জেলেকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য জোরাজুরি করছিল। আর তখনই উভয় পক্ষে এই গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে একজন বিএসএফ সদস্য মারা যান। বিজিবি আধিকারিক ও বিএসএফের কর্তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চলছে। আমরা মনে করি, এটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে, ‘এক্সিডেন্ট’ হয়েছে। আলাপের মাধ্যমে এর একটা সুরাহা হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আপনারা নিশ্চয়ই জানেন- আমাদের মাছ ধরার জন্য ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। বিজিবি ও মৎস্য অধিদফতর যৌথ টহল দিচ্ছিল, সেই সময় তারা দেখে একটা নৌকায় করে কিছুসংখ্যক জেলে মাছ ধরছে। তাদের চ্যালেঞ্জ করলে জানা যায়, তারা ভারতীয় জেলে। তাদের যখন আটক করা হয় তখন তাদের কয়েকজন বিএসএফকে খবর দিলে বিএসএফ সেখানে চলে আসে। সেখানেই ভুল বোঝাবুঝি হয়।

তিনি আরও বলেন যে, এটা একটা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে। বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে চমৎকার একটা সম্পর্ক রয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আমরা সবাই মর্মাহত হয়েছি। তবে ফের একবার আলোচনার মাধ্যমে সমস্ত পরিস্থিতি শান্ত হবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এই মন্ত্রী।