ছবি - প্রতীকী

সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় : স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষপেও কোনও কাজ হল না। অভিযোগ, লোকদেখানি কাজ সেরেছে ডোমজুড় রিয়ামনভারী গ্রীন কমপ্লেক্স আবাসনের কর্তৃপক্ষ। আদতে তারা যে কমপ্লেক্সের সমস্ত ফ্ল্যাটে খারাপ জিনিস ব্যবহার করেছে সেই প্রমাণ আগেই দিয়েছেন আবাসিকরা। এবার সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী হস্তক্ষেপেও কাজ হচ্ছে না বলে অভিযোগ আবাসিকদের।

বর্ষশেষ ও বর্ষবরণের অপেক্ষায় আনন্দে মেতে উঠেছিলেন হাওড়া ডোমজুড় রিয়ামনভারী গ্রীন কমপ্লেক্স আবাসনের বাসিন্দারা। গত বছর অক্টোবর মাসে রিয়ামনভারী গ্রীন কমপ্লেক্স সঙ্ক্রান্ত সমস্ত সমস্যা ও নাহ্য দাবি মিটিয়ে দেবে বলেছিল প্রোমোটাররা। সেই আশাতেই ছিলেন আবাসিকরা। তাঁরা আশা করছিলেন যখন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশেই শ্রীরামপুর সাংসদ কল্যাণ বন্দোপাধ্যায় ডোমজুড় বিডিও রাজা ভৌমিক ও আইসি পার্থ মন্ডল কে বিষয়টি দেখতে বলেছেন তখন নিশ্চয় কাজ হবে। কিন্তু নতুন বছরের শুরুর দিনেই বিপত্তি ঘটে যাওয়ায় ফের ক্ষুব্ধ আবাসিকরা। তাঁরা বলছেন, ‘পুরো বিষয়টাই আই ওয়াশ। কোনও কাজ হবে না।’ কোন ঘটনাকে কেন্দ্র করে সমস্যার সূত্রপাত?

অভিযোগ, রিয়ামনভারী গ্রীন কমপ্লেক্সের ব্লক ৭ এর ৪ নাম্বার ফ্লোর ‘F’ ফ্লাট ওনার ডেভিড চক্রবর্তীর ব্যলকনির লম্বা কাঁচ খুলে নীচে পরে চলতি রাস্তায় । সেই সময় শিশুরা নীচে খেলছিল, লোক যাতায়াত করছিল। এই কাঁচ যদি কারোর মাথায় পড়তো তাহলে বছরের শুরুতেই এক বড়োসড় দুর্ঘটনা ঘটে যেত। ফ্ল্যাটের মালিক ডেভিড চক্রবর্তী বলেন “এই সবই হচ্ছে প্রোমোটার এর গাফিলতি ও জঘন্য ফিনিশিং। আবাসনে ফেস ওয়ানের সমস্ত ব্লকের প্রায় সমস্ত ফ্লাটেই ড্যম্প ধরে গিয়েছে সিমেন্ট বালি খসে খসে পড়ছে। ব্যলকনির কাঁচ খুলে যাবে এটাও অভাবনীয়। ওনারা খুব আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন ।”

আরও পড়ুন- কর ফাঁকি রুখতে নজর বাড়ানো হচ্ছে

আর এক ফ্ল্যাটের মালিক বলেন “কবে ব্লক গুলো ও ধসে পরবে তাও অসম্ভব কিছু নয়। সিমেন্ট বালি সব ই মনে হয় নিম্ন মানের ব্যবহৃত হয়েছে, এখানে ফ্যামিলি নিয়ে থাকা সেফ নয়। প্রোমোটার পবন আগারওয়াল খবরের কাগজে মিথ্যা আ্যড দিয়ে যাচ্ছে যে ক্লাব হাউস হচ্ছে বা স্পানিশ লাইফ। এগুলো সব ভাঁওতা ও ফ্ল্যাট বিক্রির নামে ক্রেতাদের ঠকাচ্ছেন। যেমন ঠকেছি আমরা সবাই।” রিয়ামনভারী ফ্লাট ওনাররা এই বিষয়ে গতকাল ই ডোমজুড় থানায় অভিযোগ জানিয়ে এসেছেন ও তারা আশাবাদী যে স্থানীয় প্রশাসন এই বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখবে ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

উল্লেখ্য রিয়ামনভারী গ্রীন কমপ্লেক্স এর সমস্যা নিয়ে পঞ্চায়েত সমিতি পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সুবীর চ্যাটার্জি ইতি পূর্বে পদক্ষেপ নিয়েছেন ডোমজুড় বিডিও রাজা ভৌমিক এর সহায়তায়। কিন্তু প্রোমোটার পবন আগারওয়াল প্রশাসনের দিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মিটিং এই বসতে রাজি হননি ও অজুহাত দেখিয়ে মিটিং ক্যনসেল করেছেন। এরই মাঝে ডোমজুড় পঞ্চায়েত রিয়ামনভারী গ্রীন কমপ্লেক্স এর “ওসি” সার্টিফিকেট ক্যনসেল করেছে ও প্রোমোটার পবন আগারওয়ালের কাজে তারা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

আবাসিকরা হাওড়া সিপি গৌরব শর্মা ও আ্যডিশানাল সিপি অনুপম সিং এর কাছে গিয়েও এই ব্যাপারে কথা বলেছেন। এখন দেখার প্রশাসন কত তারাতারি বিষয়টি নিয়ে মধ্যস্থতা করে। কমপ্লেক্স নিয়ে তাঁদের আন্দোলন আরও বড় হবে বলে জানিয়েছেন।