স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কিছুদিন হল সন্ত্রাসের কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে ভাটপাড়া, কাঁকিনাড়া-সহ আশেপাশের জনপদ। শুক্রবার গভীর রাতে কাঁকিনাড়া স্টেশনে বোমাবাজিতে প্রাণ হারান বিশ্বজিৎ বিশ্বাস নামের বছর একুশের এক যুবক। কিছুদিন আগে তার দাদা সন্ত্রাসের বলি হয়েছিলেন।

সেই খবর শুনে বিশ্বজিৎ ভিন রাজ্য থেকে নিজের বাড়িতে ফিরছিলেন। রাত দুটো চল্লিশ নাগাদ ট্রেন থেকে তিনি কাঁকিনাড়া স্টেশনে নামেন। সেই সময় দুষ্কৃতীরা চড়াও হয় তাঁর ওপর। কিছুক্ষণের মধ্যেই বোমাবাজিতে মৃত্যু ঘটে তাঁর। এই ঘটনায় উদ্বিগ্ন নাট্যব্যক্তিত্ব চন্দন সেন।

শান্তি ফেরানোর দাবিতে কিছুদিন আগেই ভাটপাড়ায় গিয়েছিলান অপর্ণা সেন, কৌশিক সেন, চন্দন সেন সহ আরও অনেকে। সেই সময় তাঁরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেন এবং পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি জমা দেন। পরবর্তীতে তাদের প্রতিনিধি হয়ে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন অপর্ণা সেন, কৌশিক সেন প্রমুখ। কিন্তু তিন মাস কেটে গেলেও ভাটপাড়া এবং কাঁকিনাড়ায় শান্তি ফেরেনি।

চন্দন সেন kolkata24x7-কে বলেন, “কিছুদিন আগে কবি শঙ্খ ঘোষের ইচ্ছায় আমরা কয়েকজন ভাটপাড়ায় গিয়েছিলাম। সেখানকার পুলিশ সুপারের সঙ্গে কথা বলে আমাদের মনে হয়েছিল ভাটপাড়ায় শান্তি ফিরবে। তিনি কথা দিয়েছিলেন দল নির্বিশেষে যারা দুষ্কৃতী তাদের গ্রেফতার করা হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও আমাদের আশ্বাস দেন। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, ভাটপাড়ায় শান্তি ফেরেনি। ২১ বছরের একজন যুবক গতকাল কাঁকিনাড়া স্টেশনে মারা গিয়েছে। ঘটনাটিতে আমি স্তম্ভিত। প্রশাসনের কাছে দাবি করব ভাটপাড়া ও কাঁকিনাড়ায় শান্তি ফেরাতে আপনারা দ্রুত উদ্যোগী হন”।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.