রোম: ফের ভেঙে পড়ল একটা আস্ত ব্রিজ। এবার ইতালিতে। যে ইতালি জুড়ে এখন শুধুই করোনা সংক্রমণ আর মৃত্যুর খবর। সেখানে ভেঙে পড়ল ব্রিজ।

কিন্তু লকডাউনের জেরে সেখানে ভিড় ছিল না। তাই ব্যস্ততম রাস্তার ব্রিজ ভেঙে পড়লেও ক্ষতি হয়নি সে রকম। শুধুমাত্র দুজন ট্রাক ড্রাইভার এর সামান্য আঘাত লেগেছে।

এই ঘটনায় হতাহতের সেরকম খবর নেই, তবে ব্রিজ ভেঙে ইতালির রোড নেটওয়ার্কের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ২০১৮ তেও এভাবেই ইতালিতে আরো একটি ব্রিজ ভেঙে পড়েছিল। কিন্তু সেসময় আহত হয়েছিলেন অনেকে। মৃত্যু হয়েছিল ৪৩ জনের।

এদিন যে ব্রিজ ভেঙে পড়েছে সেটি মাগরা নদীর উপর দিয়ে গিয়েছিল। ইতিমধ্যে প্রকাশ্যে এসেছে সেই ভাঙা ব্রিজের ছবি। দেখা যাচ্ছে বৃষ্টি অনেকটাই লম্বা।

ঘটনার পর ওই দুই ট্রাক ড্রাইভারকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ইতালির রাস্তার খারাপ অবস্থা সে দেশে মাঝেমধ্যেই রাজনৈতিক ইস্যু হয়ে ওঠে। আবার সামনে এলো সেরকমই একটি ঘটনা।

জানা গিয়েছে যেখানে এই ঘটনাটি ঘটেছে সেই রাস্তা গত নভেম্বরেই সাজানো হয়েছিল। এ দিনের ঘটনা কিভাবে ঘটল তার রিপোর্ট তৈরি করা হচ্ছে।

ইতালিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা পজিটিভ হওয়ার ঘটনা অনেকটাই কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৩৯ জনের করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে। সোমবার এই সংখ্যাটাই ছিল ৩ হাজার ৫৯৯। ইতালির সরকারি একটি সূত্রে খবর, গত দু-দিন ধরে পজিটিভ কেসের হার কমছে। মঙ্গলবার যত সংখ্যক ব্যক্তির পজিটিভ ধরা পড়েছে, তা গত ২৫ দিনের মধ্যে সবথেকে কম। গত একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৬০৪ জনের। সোমবার এই সংখ্যাটাই ছিল ৬৩৬। মৃতের সংখ্যা সামান্য কমলেও, তাতে আশান্বিত হওয়ার মতো জায়গায় পৌঁছয়নি। গড়ে এখনও রোজ ছ’শোর আশপাশে মৃত্যু হচ্ছে। বুধবার ভোর ৪টে পর্যন্ত ইতালিতে মৃত বেড়ে হয়েছে ১৭ হাজার ১২৭। করোনা মৃত্যুতে এখনও ইতালিই শীর্ষে। সব মিলিয়ে আক্রান্ত ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৫৮৬।

চিনের উহান শহর থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে ইতালি এখন মৃত্যুপুরী। করোনা মহামারীর আকার নিয়েছে ইউরোপের দেশগুলিতে। চারপাশে মৃত্যুমিছিলে হতাশায়, আতঙ্কে দিনকাটছে ইতালির ৬ কোটি মানুষের। লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে ইতালি সরকার।

নাগরিক সুরক্ষা সংস্থার প্রধান অ্যাঞ্জেলো বোরেল্লি জানান, জনগণকে সুরক্ষা দিতে সরকার করোনা মোকাবিলায় সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাচ্ছে। যার জন্য ২৪ হাজার ৩৯২ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরতে পেরেছেন।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প