ভোপাল: হাতের মেহেন্দি পুরোপুরি মিলিয়ে যায়নি৷ তার আগেই স্বামীর ঘর ছেড়ে পালালেন সদ্য বিবাহিতা এক যুবতী৷ নতুন করে ঘর বাঁধার আশায় স্বামীর সংসার ত্যাগ করে যার সঙ্গে পালিয়েছেন তিনি আর কেউ নন খোদ নিজেরই বিয়ের পুরোহিত৷ খবর শুনে অনেকেরই চোখ কপালে উঠেছে৷ বলা বাহুল্য, দুই জনেই এখন পলাতক৷ তাদের সন্ধান পেতে চারিদিকে লোক লাগানো হয়েছে৷

এই কাহিনী শুনে বলিউডে সিনেমা তৈরি হয়ে যেতেই পারে৷ সিনেমা তৈরির সব মশলা এতে মজুত আছে৷ আর এখন তো রিয়েল লাইফ স্টোরি রিলেতে ফুটিয়ে তোলার ট্রেন্ডও চলছে৷ সে যাই হোক৷ ঘটনাটি মধ্যপ্রদেশের বিদিশা জেলার তোরি বাগরোদ গ্রামের৷ ৭ মে রিনা বাই নামে এক যুবতীর বিয়ে হয়৷ সেই বিয়ের পুরোহিত ছিলেন বিনোদ মহারাজ৷ তার দু’সপ্তাহ পর রিনা ঘর ছাড়েন৷ খোঁজ নিয়ে জানা যায় বিনোদও পলাতক৷ তারপর দুইয়ে দুইয়ে চার করতে বাড়ির লোকেদের বিশেষ অসুবিধা হয়নি৷

জানা যায়, বিয়ের তিনদিন পর বাপেরবাড়ি ফিরে আসেন রিনা৷ তারপর ২৩মে থেকে সে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়৷ অপরদিকে ওই দিনই গ্রামে আরও এক বিয়ে ছিল৷ সেই বিয়েপ পুরোহিত ছিল বিনোদ৷ কিন্তু সকাল থেকেই তাঁর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না৷ তারপরেই সামনে আসে আসল কাহিনী৷

গ্রামবাসীরা জানতে পারেন, রিনার সঙ্গে পালিয়েছেন বিনোদ৷ আর পুরোহিতের সঙ্গে পালানোর আগে দেড় লক্ষ টাকার সোনার গয়না ও নদগ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে পালায়৷ পরিবারের বিশ্বাস, বিনোদের সঙ্গে নিশ্চই রিনার আগে থেকে অ্যাফেয়ার্স ছিল৷ বাড়ির চাপে রিনা বিয়ে করলেও বিনোদের সঙ্গে পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ খুচ্ছিল৷ সুযোগ মিলতেই পালিয়ে যায় সে৷ বাড়ির মেয়েকে খুঁজে বের করতে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছে পরিবার৷