লন্ডন: পদত্যাগের পথেই থেরেসা মে ৷ এমনই জানিয়ে দিলেন তিনি৷ তবে কবে ব্রিটিশ কুর্সি ছাড়ছেন তা জানাননি৷ ব্রেক্সিট নিয়ে তাঁর উত্থাপিত প্রস্তাব ব্রিটিশ আইনসভায় পাশ হলেই তিনি পদত্যাগ করবেন৷ এই খবর দিচ্ছে বিবিসি সহ সব আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম৷

থেরেসা মে জানিয়েছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ইংল্যান্ডের বেরিয়ে যাওয়ার এই প্রক্রিয়ার পরবর্তী ধাপে তিনি আর নেতৃত্বে থাকতে চান না৷ ডাউনিং স্ট্রিটে আবেগ তাড়িত ভাষণে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বলেন, নতুন প্রধানমন্ত্রী এবার ব্রেক্সিট আলোচনায় নেতৃত্ব দেবেন। আমি চাই সবাই চুক্তিতে সমর্থন দিক যাতে মসৃণভাবে ইইউ থেকে ব্রিটেন বেরিয়ে আসতে পারে।

আরও পড়ুন : ‘মিশন শক্তি’তে ভারতের সাফল্যের পরই নড়েচড়ে বসে বার্তা দিল পাকিস্তান

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ইংল্যান্ডের বেরিয়ে যাওয়া নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে তীব্র টানাপোড়েন চলছে৷ এর জেরে ইউরোপের অর্থনীতি প্রবল নাড়া খেয়েছে৷ এর আগে ইংল্যান্ডের জনগণ ব্রেক্সিটের পক্ষে ভোট দিয়েছেন৷ তারপরেই তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়ান ডেভিড ক্যামেরন। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন থেরেসা। একই ইস্যুতে তিনিও জাতীয় আইনসভায় আস্থা হারিয়েছেন। মন্ত্রিসভায় ভাঙন ধরেছে।

অন্যদিকে ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্কের ইঙ্গিত ব্রিটেন ইইউ-তে থাকবে৷ ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন,গত ২৯ মার্চ ব্রিটেনের ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছেড়ে দেওয়ার কথা ছিল৷ করার কথা ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-এর আবেদনে ব্রেক্সিটের চূড়ান্ত চুক্তির জন্য ১২ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বাড়িয়েছে ই ইউ।