নয়াদিল্লি: আপাতত বন্ধই থাকছে ট্রেন পরিষেবা। আগামী ১২ অগস্ট পর্যন্ত সমস্ত রকম পরিষেবা বন্ধ রাখারই সিদ্ধান্ত ভারতীয় রেলের। আপাতত শ্রমিক স্পেশাল যে ট্রেনগুলি চলছে সেগুলিই চলবে। পাশাপাশি চলবে কিছু স্পেশাল ট্রেন।

শুধু তাই নয়, শহরতলির মধ্যে যে ট্রেন পরিষেবা শুরু হওয়ার কথা ছিল সেগুলিও আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার ভারতীয় রেলের তরফে দেওয়া বিজ্ঞপ্তিতে এমনটাই জানানো হয়েছে। সেখানে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, আপাতত করোনা উদ্বেগের কথা ভেবে লোকাল, প্যাসেঞ্জার ও মেট্রো রেল পরিষেবা বন্ধই রাখা হচ্ছে৷

দেশে ক্রমশ ভয়াবহ হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি। হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ। বিশেষজ্ঞরা গোষ্ঠী সংক্রমণেরই আশঙ্কা করছেন। কিন্তু এখনও পর্যন্ত অফিসিয়ালি কিছু জানানো হয়নি এই বিষয়ে। গত ২৪ ঘন্টায় রেকর্ড করোনা আক্রান্ত দেশে। প্রায় ১৭ হাজার আক্রান্ত একদিনে। গত চার দিনে ৬০ হাজারের বেশি মানুষ ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে ট্রেন চালানো যায় কিনা তা নিয়ে উঠছিল প্রশ্ন?

যদিও লোকাল ট্রেন চলবে কিনা তা রাজ্যের উপরেই ছেড়ে দিয়েছে ভারতীয় রেল। তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুধবার বাংলায় লকডাউন আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে, আপাতত বাংলায় লোকাল, মেট্রো চলার কোনও সম্ভাবনা নেই।

জানা যাচ্ছে, ১ জুলাই থেকে ট্রেন চলাচলের জন্য টিকিট কাটা শুরু হয়ে গিয়েছিল। অনলাইনে সেই সমস্ত টিকিট বাতিল করে দিচ্ছে ভারতীয় রেল। আগামী ১২ আগস্ট পর্যন্ত বিশেষ ট্রেন চালাবে ভারতীয় রেল। অন্যান্য ট্রেন পরিষেবা বন্ধ। টিকিট কাটার পয়সা ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলে রেল সূত্রে জানা গিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.