প্রতীকী ছবি

কলকাতা:  ৪৮ ঘন্টার ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক। ছ’দফা দাবিতে আগামী ৩১ জানুয়ারি এবং ১ ফেব্রুয়ারি ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। ব্যাংক কর্মচারীদের বেতন কাঠামো পুনর্বিন্যাস এবং সপ্তাহে পাঁচ দিন কাজ-সহ ছ’দফা দাবিতে এই ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। ব্যাংক অফিসারদের বৃহত্তম সংগঠন অল ইন্ডিয়া ব্যাংক অফিসার্স কনফেডারেশনের তরফে এই ব্যাংক ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। ৪৮ ঘন্টার লাগাতার ধর্মঘটের ফলে চূড়ান্ত সমস্যার মধ্যে পড়তে হতে পারে সাধারণ মানুষকে। ৪৮ ঘন্টার ব্যাংক ধর্মঘটে ব্যাহত হতে পারে এটিএম পরিষেবাও।

দাবি মানা না হলে আগামিদিনে আরও বৃহত্তম আন্দোলনের পথে হাঁটার হুঁশিয়ারি ব্যাংক ইউনিয়নের। জানা গিয়েছে, ১১, ১২ এবং ১৩ মার্চ একই দাবিতে বিক্ষোভ অবস্থানে বসছেন ওই সংগঠনের অফিসার সদস্যরা। এরপরেও যদিও কেন্দ্র ব্যাংক কর্মচারীদের দাবি না মানে তাহলে অনির্দিষ্টকালের জন্যে ধর্মঘটের পথে হাঁটার হুঁশিয়ারি ব্যাংক ইউনিয়ন। আগামী ২১ এপ্রিল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্যে ধর্মঘটের পথে ব্যাংক কর্মচারীরা। আর তা সত্যি হলে সাধারণ মানুষকে চূড়ান্ত সমস্যার মধ্যে পড়তে হবে বলে জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৮ জানুয়ারি দেশজুড়ে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল ১০টি কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলি। দেশব্যাপী এই সাধারণ ধর্মঘটে শামিল হয়েছিলে ব্যাংক কর্মচারীদের একাধিক সংগঠন। যদিও এই ধর্মঘটে ব্যাংক অফিসারদের বৃহত্তম সংগঠন অল ইন্ডিয়া ব্যাংক অফিসার্স কনফেডারেশন সরাসরি সামিল না হলেও নৈতিক সমর্থন জানিয়ে ছিল। কিন্তু অন্যান্য ব্যাংক সংগঠনগুলি সামিল হয়েছিল এই বনধে। বন্ধ ছিল সমস্ত ব্যাংকের শাটার। চূড়ান্ত সমস্যার মধ্যে পড়তে হয় সাধারণ মানুষকে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ