নয়াদিল্লি : ভারতীয় সেনার ১৭-১৮ জন জওয়ানের দলের ওপর তুষারধ্বস। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার উত্তর সিকিমের লুঙ্গনাক লা এলাকায়। বাকিদের উদ্ধার করা গেলেও, একজন জওয়ান নিখোঁজ বলে খবর।

ভয়াবহ এই তুষারধসে ১৭-১৮ জন চাপা পড়লেও অন্যান্যদের উদ্ধার করা গিয়েছে। কিন্তু এখনও খোঁজ মিলছে না একজন জওয়ানের। ওই জওয়ানের খোঁজে চিরুণি তল্লাশি চালাচ্ছে সেনা।

যাঁদের উদ্ধার করা হয়েছে তাঁদের শারীরিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল বলে জানানো হয়েছে। সেনা সূত্রে খবর একটি বড় দলের অংশ হিসেবে ওই ১৭-১৮ জন জওয়ান একসাথে যাচ্ছিলেন। তখনই তুষারধ্বস নামে। তাঁরা সবাই চাপা পড়ে যান। এই জওয়ানরা মূলত টহলদারি চালাচ্ছিলেন। এরই সাথে বরফ সরানোর কাজও করছিলেন তাঁরা। তখনই এই দুর্ঘটনা ঘটে।

এদিকে, দিন কয়েক আগেই উত্তর সিকিমে নাকু লা সেক্টরে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন ভারতীয় সেনা ও চিনা সেনার জওয়ানরা। উল্লেখ্য এই এলাকায় সড়ক পরিবহণ নেই। হেলিকপ্টারে করে এর যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রাখে ভারতীয় সেনা।

শনিবার নাকু লা সেক্টরে আচমকাই কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন দুদেশের জওয়ানরা। জি নিউজের সূত্র জানাচ্ছে দুদেশই সীমান্ত বরাবর পেট্রোলিং চালাচ্ছিল। সেই সময় বাগবিতণ্ডা শুরু হয়। পরে তা রীতিমতো হাতাহাতিতে পৌঁছয়। দুপক্ষেরই কয়েকজন জওয়ান আহত হন। পরে গোটা ঘটনার মীমাংসা হয়।

সেনা সূত্রে খবর নাকু লা সেক্টরে সাধারণত কোনও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে না। মুগুথাং এলাকার কাছে অবস্থিত এই সেক্টর মোটামুটিভাবে শান্তিপূর্ণ। তবে আচমকাই এই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন দুদেশের জওয়ানরা। বিষয়টি স্থানীয় ভাবেই মিটিয়ে নেওয়া হয়।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ