বর্ধমান: দিনভর নাটক। কেথায় রাকেশ সিং ? প্রশ্নে তোলপাড় রাজ্য। অবশেষে বিজেপি নেতা ধরা পড়েছে পূর্ব বর্ধমান জেলার গলসি থেকে। চাঞ্চল্যকর কোকেন কান্ডে ধৃত দলেরই নেত্রী পামেলার অভিযোগ, রাকেশ এই চক্রে জড়িত।

আলিপুর থেকে কোকেন সহ বিজেপি নেত্রী পামেলা গোস্বামী এবং তাঁর এক সঙ্গীকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ পামেলা দলেরই নেতা রাকেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেন রাকেশ সিং মাদক পাচারের সঙ্গে যুক্ত বলেও তার অভিযোগ। তবে রাকেশ সিং পাল্টা অভিযোগ করেন যে ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে।

অন্যদিকে পামেলা গোস্বামীর অভিযোগের ভিত্তিতে রাকেশ সিং কে ডেকে পাঠানো হলেও কলকাতা পুলিশের কাছে সে হাজিরা দেয়নি। আদালত তার আইনি রক্ষাকবচের আবেদন বাতিল করে। গা ঢাকা দেয় এই বিজেপি নেতা৷

মঙ্গলবার তার বাড়ি ওয়াটগঞ্জে তলাল্লি করতে গেলে পুলিশকে বাধার মুখে পড়তে হয়। দীর্ঘ সময় রাকেশ সিংয়ের ছেলে পুলিশকে ঢুকতে দেয়নি বাড়িতে। পরে তল্লাশিতে রাকেশ সিং কে বাড়িতে পায়নি পুলিশ।

নিখোঁজ রাকেশ পুলিশের জালে পড়ল পূর্ব বর্ধমান জেলার গলসিতে।তাকে কলকাতায় আনা হচ্ছে বলেই খবর। দীর্ঘ দিন কংগ্রেসে থাকা রাকেশ সিং সম্প্রতি বিজেপিতে যোগ দেয়৷

উল্লেখ্য, শনিবার আলিপুর জেলা আদালতে পামেলাকে তোলা হয়৷ তার আগে সংবাদমাধ্যমের সামনে পামেলা বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে৷ তাঁর দাবি, কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র ঘনিষ্ট রাকেশ সিং তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছেন৷

শুক্রবার মাদক সহ গ্রেফতার হয়েছেন বিজেপি যুব মোর্চার সম্পাদক পামেলা গোস্বামী। নিউ আলিপুরের রাস্তা থেকেই গ্রেফতার করা হয়েছে বিজেপি নেত্রীকে। কয়েক লক্ষ টাকার কোকেন উদ্ধার করা হয়েছে তাঁর থেকে।

জানা গিয়েছে, শুক্রবার নিউ আলিপুরে নিজের আবাসনের কাছে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য পামেলা যান। সেখানেই তাঁকে হাতেনাতে ধরে পুলিশ। নিউ আলিপুর থানার পুলিশ পামেলার গাড়ি থেকে প্রায় ১০০ গ্রাম কোকেনের প্যাকেট পেয়েছেন বলে দাবি পুলিশের। তারা জানিয়েছেন, পামেলা গোস্বামীর হ্যান্ড ব্যাগ থেকে  কোকেন উদ্ধার হয়েছে। এমনকী বিজেপি নেত্রী গাড়ির সিটের নিচ থেকেও কোকেন পাওয়া গিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।