মুম্বই: দেশের আরও একজন করোনার শিকার৷ সোমবার সকালে মুম্বইয়ে মারা গেলেন ফিলিপিন্সের এক পর্যটক৷ এ নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মৃত্যু হল মোট ৮ জনের৷ আগেই মহারাষ্ট্রে এক জনের মৃত্যু হয়েছে৷ তিনি ছিলেন ভারতের বাসিন্দা৷ কিন্তু মুম্বইয়ে মারা গিয়েছেন ৬৮ বছরের ফিলিপিন্সের এক পর্যটকের৷

করোনাভাইরাস মারাত্মক আকার ধারণ করেছে মহারাষ্ট্রে৷ সোমবার সকালেই আরও ১৫ জনের শরীরের COVID19 পজিটিভ পাওয়াা গিয়েছে৷ এ নিয়ে মহারাষ্ট্রে ৮৯ জনের শরীরে মিলেছেন মারণ এই করোনা ভাইরাস৷ সারা দেশে আক্রান্তের সংখ্যা রবিবারই চারশো ছাড়িয়েছে৷ রবিবার তিন জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়৷ এদিন আরও একজনের মৃত্যু সারা দেশে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয় ৮৷

 রবিবার পরপর তিনজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায় সর্বশেষ গুজরাতের সুরাতে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছিল৷ সুরাতের হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৬৯ বছর বয়সি ওই ব্যক্তি। তাঁর করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।গতকাল হাসপাতালেই তাঁর মৃত্যু হয়৷

এদিনই গুজরাতের ভদোদরার হাসপাতালেও আরও একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়৷ ৬৫ বছরের বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। যদিও তাঁর করোনা টেস্টের রিপোর্ট এখনও এসে পৌঁছয়নি। গুজরাতের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফ থেকে এই খবর জানানো হয়।

রবিবার বিহারে ৩৮ বছরের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তিনি কিছুদিন আগে কাতারে গিয়েছিলেন। তাঁর টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। রেনাল ফেলিওরে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। বিহারে এই প্রথম করোনা ভাইরাসের ঘটনা সামনে এল। ওই ব্যাক্তি কলকাতায় ঘুরে গিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

এদিকে, মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৪। রবিবার সকালে ৬৩ বছরের এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে করোনা আক্রান্ত হয়ে। তাঁর ডায়াবেটিস ও উচ্চরক্তচাপ ছিল বলে জানা গিয়েছে।

এর আগে, পঞ্জাবের এক ব্যক্তির মৃত্যু করোনায় হয়েছে। আগেই ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। পরে রিপোর্ট আসায় জানা গিয়েছে যে ওই ব্যক্তির শরীরে করোনা ভাইরাস ছিল।

৭২ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি সদ্য বিদেশ থেকে ফেরেন। জার্মানি থেকে ইতালি হয়ে ভারতে ফিরেছিলেন তিনি। পঞ্জাবের নওয়ানশহরের একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। প্রচণ্ড বুকে ব্যাথার পর তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তাঁর শরীর থেকে যে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল, তাতে মিলেছে করোনা ভাইরাস।

অন্যদিকে, সোমবার বিকেল থেকে লক ডাউন হয়ে যাচ্ছে কলকাতা-সহ রাজ্যের সব পুরশহর। রাজ্য জুড়ে এই নির্দেশিকা জারি করা হচ্ছে। পুর শহরগুলিতে কেবলমাত্র জরুরি ভিত্তিতে কিছু দোকান ও হাসপাতাল খোলা থাকবে বলে জানা গিয়েছে।

শুধু কলকাতা নয়, করোনা ভাইরাস ঠেকাতে গোটা দেশের ৭৫টি জেলায় লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে৷ ইতিমধ্যে গুজরাত, রাজস্থান, পঞ্জাব এবং ওডিশা-সহ একাধিক রাজ্যে লকডাউন করে দেওয়া হয়েছে৷