শিশুটির ওপর যৌন নির্যাতন করেছিল সে, তন্ত্র সাধনার জন্যই শিশুটির শরীরে সূচ ঢুকিয়েছিল সে, শেষ পর্যন্ত স্বীকার করল সনাতন৷ আর একাজে তাকে সাহায্য করেছিল শিশুটির মা, মঙ্গলা৷ জেরার মুখে এই কথা স্বীকার করতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে৷ হতবাক হয়ে যান উপস্থিত সকলেই৷

আরও পড়ুন: পুরুলিয়া সূচ-কাণ্ডে গ্রেফতার ‘সাধু’ সনাতন

Kolkata 24×7-এ এই খবর প্রথম প্রচারিত হয়৷ মায়ের সামনেই যৌন নির্যাতন করা শিশুটিকে৷ এই খবরের জেরেই শেষ পর্যন্ত গ্রেফতার হয় শিশুটির মা এবং তারপর গ্রেফতার হয় ফেরার সনাতনও৷ ধৃত মঙ্গলার বিরুদ্ধে POSCO আইন ও হত্যা মামলা দায়ের করা হয়৷

আরও পড়ুন: শিশু মৃত্যুকাণ্ড: জেলে গিয়ে মঙ্গলাকে জেরা করবে পুলিশ, এখনও অধরা সনাতন

আদালতের নির্দেশে পুলিশি হেফাজতে রয়েছে সনাতন ঠাকুর৷ পুলিশের জেরায় আজ সব কথা স্বীকার করে সনাতন৷ শিশুটির মায়ের সাহায্যেই তন্ত্র সাধনার কাজে শিশুটির ওপর এমন নির্যাতন করে সে, জেরায় একথা সে স্বীকার করেছে৷

আরও পড়ুন: শিশু ধর্ষণ: অভিযুক্ত ‘নরখাদক’ সনাতনের ছবি প্রকাশ্যে আনল KOLKATA24X7

প্রসঙ্গত এর আগে সনাতন সব দোষ অস্বীকার করে জানিয়েছিল, ‘আমার কোন দোষ নেই, আমাকে ফাঁসানো হয়েছে, শিশুর শরীরে সূচ ঢুকিয়েছে আমার ছেলে ও ছেলের বউ’৷ আসানসোল স্টেশনে শিশুকন্যা নির্যাতনে অভিযুক্ত সনাতনের মন্তব্য শুনে একমূহুর্ত হলেও চমকে যান সাংবাদিকরাও৷ উত্তরপ্রদেশ থেকে জব্বলপুর হাওড়া শক্তিপুঞ্জ এক্সপ্রেসের এসি কামরা থেকে সনাতনকে নিয়ে নামেন পুরুলিয়া পুলিশের বিশেষ দল৷

শিশুকন্যা নির্যাতন ও হত্যা মামলায় শিশুর মা ও অভিযুক্ত সনাতনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির অপেক্ষাতেই রয়েছে এখন পুরুলিয়া সহ গোটা রাজ্যের মানুষ৷