নয়াদিল্লি: দেশে ভ্যাকসিন এসে গিয়েছে। ১৬ জানুয়ারি থেকে টিকাকরণ শুরু হবে। কিন্তু এখন অবধি দেশে করোনা সংক্রমণ অব্যহত। বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল অবধি দেশজুড়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ হাজার ৯৪৬ জন। এই ২৪ ঘন্টা সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে আরও ১৯৮ জনের।

নতুন করে সংক্রমণ ও মৃত্যুর জেরে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছে গিয়েছে ১ কোটি ৫ লক্ষ ১২ হাজার ৯৩ জনের। এরমধ্যে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ২ লক্ষ ১৩ হাজার ৬০৩। দেশজুড়ে সুস্থ হয়ে উঠেছে ১ কোটি ১ লক্ষ ৪৬ হাজার ৭৬৩ জন।

আরও পড়ুন – ৭ মাস পর দেশে ফিরছেন চিনা বন্দরে আটকে পড়া এমভি জগ আনন্দের ২৩ নাবিক

দেশে এখন অবধি করোনার জেরে মোট মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৫১ হাজার ৭২৭ জনের। এরমধ্যে উল্লিখিত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ১৯৮ জনের।

উল্লেখ্য, এই মুহুর্তে ভারতে দুটি ভ্যাকসিন রয়েছে। এরমধ্যে একটি হল অক্সফোর্ডের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন কোভিশিল্ড’, যা তৈরি করেছে সিরাম ইন্সটিটিউট। অন্যদিকে দেশীয়ভাবে ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভাক্সিন ভারতে জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমোদিত হয়েছে।

আরও পড়ুন – এবার ধাক্কা স্ন্যাপচ্যাটে, ডোনাল্ড ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট পাকাপাকি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিল সংস্থা

উল্লেখ্য, প্রথমে ধাপে প্রায় ১ কোটি স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের ও ২ কোটি ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারদের এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। এরপরে দেওয়া হবে সেইসব মানুষকে যাদের বয়স ৫০ বছরের ওপরে। স্বাস্থ্যসেবা কর্মী ও ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারদের টিকা দেওয়ার খরচ বহন করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ মঙ্গলবার জানান, “বিশ্বের অনেক জায়গায় একাধিক ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। তবে বর্তমানে কোনও দেশেই ভ্যাকসিন গ্রহণকারীদের ভ্যাকসিন বেছে নেওয়ার অপশন দেওয়া হয়নি।” সেক্ষেত্রে ভারতেও ভ্যাকসিন গ্রহণকারীদের পছন্দসই ভ্যাকসিন বেছে নেওয়ার বিকল্প রাখা হয়নি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।